Main Menu
শিরোনাম
সিলেটে বিষপানে যুবতীর মৃত্যু         করোনায় মারা গেলেন সিকৃবির প্রফেসর ড. মাহফুজুল হক         বিশ্বনাথে কৃষকদের মধ্যে ধানের বীজ ও সার বিতরণ         গোলাপগঞ্জে পিকআপ ভ্যানের ধাক্কায় বৃদ্ধের মৃত্যু         জাদুকাটার বালু মহাল ইজারা প্রদানের দাবীতে মানববন্ধন         সিলেটে করোনায় আরো ২ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ১৩৯         বিশ্বনাথে সিএনজি চালক-যাত্রীর মধ্যে সংঘর্ষ, আহত ৬         ট্যাকেরঘাট স্কুলের পুর্নমিলনী রেজিষ্ট্রেশন শুরু         কমলগঞ্জে নবনির্মিত দু’টি শহীদ মিনারের উদ্বোধন         ছাতকে সড়ক দুর্ঘটনায় কলেজছাত্র নিহত         সুনামগঞ্জে ঝড়ে রাস্তায় ভেঙে পড়ল বিদ্যুতের ১১টি খুটি         বিশ্বনাথে মাছের সাথে এ কেমন শত্রুতা!        

রায়হান হত্যায় এএসআই আশেক এলাহী গ্রেপ্তার

বৈশাখী নিউজ ২৪ ডটকম: সিলেট নগরীর বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতনে রায়হান আহমদ নামের যুবক নিহতের মামলায় এই ফাঁড়ির সাময়িক বহিস্কৃত অতিরিক্ত উপ পরিদর্শক (এএসআই) আশেক এলাহীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

বুধবার রাতে তাকে সিলেট পুলিশ লাইন্স থেকে গ্রেপ্তার করা হয় জানিয়ে পিবিআই সিলেটের পুলিশ সুপার মো. খালেদ উজ জামান বলেন, আজ বৃহস্পতিবার তাকে আদালতে হাজির করে রিমান্ড চাওয়া হবে।

১০ অক্টোবর রাতে সোর্সের তথ্যের ভিত্তিতে এএসআই আশেক আলীর নেতৃত্বেই রায়হান আহমদকে বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে নিয়ে আসা হয় বলে জানতে পেরেছে তদন্ত সংশ্লিস্টরা। ফাঁড়িতে আনার পর নির্যাতন চালানো হয় রায়হানের উপর। নির্যাতনে অসুস্থ হয়ে ১১ অক্টোবর ভোরে তিনি মারা যান। গত ২৫ অক্টোবর পুলিশের সেই সোর্স সাইদুর রহমানকেও ৫৪ ধরায় গ্রেপ্তার করে পিবিআই।

এরাআগে এই মামলায় পুলিশ কনস্টেবল টিটু চন্দ্র দাস ও হারুনুর রশীদকে গ্রেপ্তার করে রিমান্ডে নেওয়া হয়। ৮ দিনের রিমান্ড শেষে বুধবার টিটুকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। হারুনুর রশীদেরও ৫ দিনের রিমান্ড শেষ হয়েছে। আজ তাকে আদালতে তোলা হতে পারে।

উল্লেখ্য, গত ১১ অক্টোবর ভোরে বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে পুলিশের নির্যাতনের শিকার হন রায়হান আহমদ (৩৪) নামের এক যুবক। পরে সিলেট ওসমানী হাসপাতালে তিনি মারা যান। রায়হান সিলেট নগরীর আখালিয়ার নেহারিপাড়ার মৃত রফিকুল ইসলামের ছেলে। তিনি নগরীর রিকাবিবাজার স্টেডিয়াম মার্কেটে এক চিকিৎসকের চেম্বারে কাজ করতেন।

এই ঘটনায় ১২ অক্টোবর রাতে অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে হেফাজতে মৃত্যু আইনে সিলেট কোতোয়ালি থানায় মামলা করেন রায়হানের স্ত্রী।

এরপর পুলিশের পক্ষ থেকে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হলে রায়হানকে ফাঁড়িতে এনে নির্যাতনের প্রাথমিক প্রমাণ পায় কমিটি। এই তদন্ত কমিটির সুপারিশে বন্দরবাজার ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আকবর হোসেন ভূইয়া, কনস্টেবল হারুনুর রশিদ, তৌহিদ মিয়া ও টিটুচন্দ্র দাসকে সাময়িক বরখাস্ত এবং এএসআই আশেক এলাহী, এএসআই কুতুব আলী ও কনস্টেবল সজিব হোসেনকে প্রত্যাহার করা হয়।

স্ত্রীর দায়ের করা মামলাটির তদন্ত করছে পিবিআই। মামলার প্রধান অভিযুক্ত এসআই আকবর পলাতক রয়েছেন বলে দাবি পুলিশের।

0Shares





Related News

Comments are Closed