Main Menu

বই মেলায় লিমা’র প্রথম উপন্যাস ‘নৈঃশব্দের শব্দ’

জাবি প্রতিনিধি: আসছে অমর একুশে বইমেলায় প্রকাশিত হতে যাচ্ছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হিমারিকা লিমা’র প্রথম উপন্যাস ‘নৈঃশব্দের শব্দ’। প্রবাহমান জীবনের নৈঃশব্দের গহীনে জমা পরে থাকা গল্প নিয়ে তার এই উপন্যাস। বইটি প্রকাশ করছে নির্বাণ প্রকাশ। প্রকাশক আবেদীন পুশকিন। প্রচ্ছদ এঁকেছেন আল নোমান।

‘নৈঃশব্দের শব্দ’ নিয়ে হিমারিকা লিমা বলেন, ‘দায়বদ্ধতা, সংগ্রাম, জীবনের গ্লানি পেছনে পেলে বেঁচে থাকার স্বপ্ন নিয়ে এ উপন্যাসটি। আমরা যেমন যুগ যুগ ধরে পাশাপাশি থেকেও অপর পাশের মানুষের দুঃখগুলো অনুভব করেতে পারি না। তেমনি পারি না সময়কে ধরে
রাখতে। এই সীমিত সময়ের জীবনে কেউ কেউ হাজারো সীমাবব্ধতা নিয়ে স্বপ্ন দেখে। আবার কেউ কেউ রেখে যায় অতৃপ্ত সমাপ্তি। আমাদের এ প্রবাহমান জীবনের নৈঃশব্দের গহীনে অনেক গল্প জমা পরে থাকে। জীবনের এই সব ধূসর গল্পগুলো নিয়ে লেখা ‘নৈঃশব্দের শব্দ’ উপন্যাসটি।

ছোটবেলা থেকেই সাহিত্য পছন্দ করা লিমা নিজের জমানো শিক্ষা বৃত্তির টাকা দিয়ে এই উপন্যাসটি প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেন,‘নৈঃশব্দের শব্দ উপন্যাসটি যে লিখেছি এ বিষয়টি পরিবারের কেউই জানে না। কারণ আমার পরিবার অনেক রক্ষণশীল। তারা আমাকে এতে সাহায্য করবে না। তাই নিজের জমানো শিক্ষা বৃত্তির টাকা দিয়ে এ বইটি প্রকাশ করেছি।’

১৯৯৭ সালের ২৭ নভেম্বর নেত্রকোণা জেলার কেন্দুয়ায় হিমারিকা লিমার জন্ম। প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পড়াশোনা সেখানেই। তারপর ভর্তি হন নেত্রকোণা সরকারি কলেজে। উচ্চ মাধ্যমিক পড়াশোনার পর এখন জাহঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংবাদিকতা ও গণমাধ্যম অধ্যয়ন বিভাগের ৩য় বর্ষে পড়ছেন। পরিবারের গন্ডি পেরিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে পা রাখার মধ্য দিয়ে নিজেকে নতুনভাবে আবিষ্কার করেন লিমা। ক্যাম্পাসের প্রকৃতি, পরিবেশ, সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো তার মনে নতুনভাবে উদ্রেগ তৈরি করে।

ব্যক্তি স্বাধীনতায় বিশ্বাসী লিমা বাংলা সাহিত্যের জন্য নতুন কিছু রেখে যাওয়ার পরিকল্পনা থেকে লেখালেখির হাতেখড়ি। পারিবারিক প্রতিবন্ধকতার ব্যাপারে লিমা বলেন, ‘প্রত্যেক মা-বাবার কাছেই সন্তানরা অনেক প্রিয়। কিন্তু সমস্যা হচ্ছে ছেলে-মেয়েরা তাদের ইচ্ছায় কখনো সিদ্ধান্ত নিতে পারে না। বড় হওয়ার পরেও পরিবারের ইচ্ছাকে প্রাধান্য দিতে হয়। এই সমস্যা থেকে আমাদের বেরিয়ে আসতে হবে। প্রত্যেকটা ব্যক্তিরই নিজস্ব চিন্তা-ভাবনা রয়েছে। ব্যক্তি স্বাধীনতা না থাকলে কখনো মানসিক বিকাশ ঘটে না আর প্রশান্তিও পাওয়া যায় না।’

0Shares





Related News

Comments are Closed