Main Menu
শিরোনাম
জকিগঞ্জে গৃহবধুর রহস্যজনক মৃত্যু, স্বামী আটক         সিলেটে নব্য জেএমবির ৫ শীর্ষ নেতা আটক         সিলেটের দুই ল্যাবে আরো ১৬৪ জনের করোনা শনাক্ত         জকিগঞ্জে বিয়ের প্রলোভনে কিশোরীকে ধর্ষণ, গ্রেপ্তার ২         রাজনগরে সড়কে প্রাণ গেল ছাত্রলীগ নেতার         বিমানের সিলেট-লন্ডন সরাসরি ফ্লাইট শুরু         বিশ্বনাথে এমপি মোকাব্বির খানের গাড়িতে হামলা         শাবির ল্যাবে আরো ২২ জনের করোনা শনাক্ত         কমলগঞ্জে এক বৃদ্ধের মৃত্যু নিয়ে ধুম্রজাল         জৈন্তাপুরে ভারতীয় পাতার বিড়িসহ গ্রেফতার ১         গোয়াইনঘাটে ধর্ষণ চেষ্টার প্রতিবাদে মানববন্ধন         শ্রীমঙ্গলে স্ত্রীকে হত্যা করে স্বামীর আত্মহত্যা!        

খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা এম এ হক আর নেই

বৈশাখী নিউজ ২৪ ডটকম : বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা, সিলেট জেলা ও মহানগর বিএনপির সাবেক সভাপতি এম এ হক আর নেই। শুক্রবার (৩ জুলাই) সকাল সাড়ে ১০টায় দক্ষিণ সুরমার নর্থ ইস্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন বিএনপির এ সিনিয়র নেতা (ইন্না—-রাজিউন)। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিলো প্রায় ৬৮ বছর। তিনি স্ত্রী এক ছেলে ও এক মেয়ে রেখে গেছেন।

নর্থ ইস্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. শাহরিয়ার হোসেন চৌধুরী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

নিউমোনিয়া ও করোনার উপসর্গ নিয়ে সিলেটের নর্থ ইস্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন এম এ হকের শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে গত বুধবার রাতে তাকে আইসিইউতে স্থানান্তর করা হয়।

এম এ হকের পুত্র ব্যারিস্টার রিয়াশাদ আজিম আদনান হক কান্নাজড়িত কণ্ঠে তার বাবার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, তিনি তার বাবার জন্য সবার দোয়া কামনা করেন।

এরআগে গত মঙ্গলবার (৩০ জুন) বিকেলে শারীরিক অবস্থা খারাপ হলে তিনি সিলেটের নর্থ ইস্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হন। বুধবার রাতে অবস্থার অবনতি হলে তাকে আইসিইউতে নেওয়া হয়। সেখানেই তিনি মারা যান। করোনার শনাক্তকরণ পরীক্ষার জন্য গতকাল বৃহস্পতিবার তার শরীরের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। এখনও নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট আসেনি।

হাসপাতালের চিকিৎসক নাজমুল ইসলাম বলেন, “উনার শ্বাসকষ্টসহ করোনাভাইরাসের উপসর্গ ছিল। তাছাড়া তিনি নিউমোনিয়ায় ভুগছিলেন। তিনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন কিনা পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করে পাঠানো হয়েছে।

।এম এ হক এর পুরো নাম মুহাম্মদ আব্দুল হক। তিনি ১৯৫৪ সালের ১ জুলাই সিলেটে জন্মগ্রহণ করেন। তার গ্রামের বাড়ি বালাগঞ্জ উপজেলার

বুধবার রাতে অবস্থার অবনতি হলে তাকে আইসিইউতে নেওয়া হয়। সেখানেই তিনি মারা যান। করোনার শনাক্তকরণ পরীক্ষার জন্য গতকাল বৃহস্পতিবার তার শরীরের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। এখনও নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট আসেনি।

হাসপাতালের চিকিৎসক নাজমুল ইসলাম বলেন, “উনার শ্বাসকষ্টসহ করোনাভাইরাসের উপসর্গ ছিল। তাছাড়া তিনি নিউমোনিয়ায় ভুগছিলেন। তিনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন কিনা পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করে পাঠানো হয়েছে।

দেওনাবাজার ইউনিয়নের কলুমা গ্রামে। এম এ হক বিভিন্ন সময় সিলেট জেলা ও মহানগর বিএনপির সভাপতি ছিলেন। বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবেও তিনি দায়িত্ব পালন করেন। সবশেষ সম্মেলনে বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টার দায়িত্ব পান তিনি।

সিলেট জেলা বিএনপি’র সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ জানান, প্রবীন এ বিএনপি নেতার মৃত্যুর খবর শুনে দলের নেতা-কর্মীরা নর্থ ইস্ট হাসপাতালে ভিড় করেন। সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীসহ বিএনপি অনেক নেতা-কর্মী সেখানে জড়ো হন।

বিএনপির সিলেট জেলা আহ্বায়ক কমিটির সদস্য কাইয়ুম চৌধুরী জানান, শুক্রবার বিকালে আসরের নামাজের পর সিলেট নগরের মানিকপীরের টিলা সংলগ্ন মাঠে এম এ হকের জানাজা হবে। পরে এশার নামাজের পর বালাগঞ্জের দেওয়ানবাজার ইউনিয়নের কুলুমা গ্রামে বাবা-মায়ের পাশে তাকে দাফন করা হবে।

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর পৃথক বার্তায় এমএ হকের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।এছাড়া সিসিক মেয়র আরিফকুল হক চৌধুরীও শোক প্রকাশ করেছেন।

0Shares





Related News

Comments are Closed