Main Menu
শিরোনাম
শ্বনাথে শিক্ষিকার আত্মহত্যার ঘটনায় মামলা         সিলেট জেলায় আরও ৪৬ জনের করোনা শনাক্ত         সিলেটে পরিবহন নেতা ফলিক বহিষ্কার         ছাতকে রেলওয়ের নৈশপ্রহরী খুনের ঘটনায় গ্রেপ্তার ৩         শাবির ল্যাবে আরো ৩৮ জনের করোনা শনাক্ত         জগন্নাথপুরে তরুণীকে গনধর্ষণ, আটক ৪         কোম্পানীগঞ্জ থানার দুই পুলিশ কর্মকর্তা ক্লোজড         গোলাপগঞ্জে ভাদেশ্বর ইউপি চেয়ারম্যানকে বরখাস্ত         সিলেট বিভাগে আক্রান্ত বেড়ে ৫৫৭৩, মৃত্যু ৯৫         চুনারুঘাটে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনে জরিমানা         জৈন্তাপুরে ৯৫০ পিস ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার ২         শায়েস্তাগঞ্জে ইউএনও করোনায় আক্রান্ত        

স্পেস স্টেশনে নিরাপদে পৌঁছেছেন দুই মহাকাশচারী

প্রযুক্তি ডেস্ক: ইলন মাস্কের ব্যক্তিগত রকেট কোম্পানি স্পেসএক্সের ফ্যালকন-৯ -এ করে রোববার (৩১ মে) রাতে নিরাপদে ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশনে পা রেখেছেন বব বেহেনকেন এবং ডগ হারলি। এরআগে শনিবার তারা যাত্রা করেন।

মহাকাশের পথে প্রথম প্রাইভেট রকেটের যাত্রা ইতিহাস গড়েছে স্পেস এক্স। শনিবার (৩০ মে) যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের কেনেডি স্পেস সেন্টার বেসরকারি গবেষণা সংস্থা থেকে স্পেস এক্স’র এই রকেট উৎক্ষেপণ করা হয়। এতদিন নাসার রকেট দিয়ে মহাকাশে নভোচারী প্রেরণ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। এবার নাসার পাশাপাশি বেসরকারি গবেষণা সংস্থা স্পেস এক্স মহাকাশে মানুষ পাঠিয়ে সেই ইতিহাস গড়ল। তবে এই যাত্রায় স্পেস এক্সকে সহায়তা করছে মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা।

মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা জানিয়েছে, আমেরিকা থেকে এই প্রথম বেসরকারি রকেটে করে মহাকাশে যাওয়া দুই বিজ্ঞানী রোববার রাত ১১টা ২২ মিনিটে (বাংলাদেশ সময়) স্টেশনে অন্য তিন মহাকাশচারীর সঙ্গে যোগ দেন। ওই তিনজন আগে থেকেই সেখানে আছেন।

‘ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশনে স্বাগত,’ নতুন দুই সতীর্থকে এভাবে গ্রহণ করেন স্টেশনের বর্তমান কমান্ডার ক্রিস্টোফার ক্যাসিডি, ‘দয়া করে ভেতরে আসুন।’

স্টেশনে যাওয়ার পর কিছুক্ষণ অপেক্ষা করেন তারা। এরপর রক্তচাপ এবং তাপমাত্রা পরীক্ষা করে দুজন ওই তিন মহাকাশচারীর সঙ্গে হাত মেলান।

গত ২৭ মে এই মিশন শুরু হওয়ার কথা থাকলেও কারিগরি ত্রুটি এবং বৈরি আবহাওয়ার কারণে পিছিয়ে যায়।

বিবিসি জানিয়েছে, বব বেহনকেন এবং ডগ হারলি এই অভিযানে নতুন ক্যাপসুল সিস্টেমের যেমন ট্রায়াল দেবেন তেমনি নাসার নতুন ব্যবসায়িক পরিকল্পনাকেও বাস্তবায়ন করবেন। তারা সেখানে কয়েক মাস থাকতে পারেন।

এই মিশনে দুই বিজ্ঞানী ক্রু ড্রাগন ক্যাপসুলের সব পার্ট পরীক্ষা করে দেখবেন। নাসার ইতিহাসে এই প্রথম কক্ষপথে থাকা অবস্থায় মহাকাশচারীরা স্পেসএক্স ক্রু ড্রাগন পরীক্ষা করবেন।

ড্রাগন ক্যাপসুল অটোমেডেট মহাকাশযান। অর্থাৎ এটি নিজে নিজেই স্টেশনে নিজস্ব পথ খুঁজে নিয়েছে। এই ড্রাগনের কোনো কন্ট্রোল স্টিক নেই; সব ফ্লাইট টাচস্ক্রিন প্যানেলের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রিত হয়। সেটি হলেও দুই বিজ্ঞানী বুঝতে চেয়েছেন তাদের হাতে মহাকাশযানটি কেমন কাজ করে।

0Shares





Related News

Comments are Closed