Main Menu

তিন জেলায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ৩

বৈশাখী নিউজ ডেস্ক: রাজধানীসহ দেশের তিন জেলায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ৩ জন নিহত হয়েছেন। রাজধানীর খিলক্ষেত, মুন্সীগঞ্জ ও রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলায় সোমবার (৬ মে) রাতে এসব ‘বন্দুকযুদ্ধ’ হয়।

নিহতদের দুইজন মাদক ব্যবসায়ী, অন্যজন চিহ্নিত সন্ত্রাসী বলে জানিয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

ঢাকা :

রাজধানীর খিলক্ষেতে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছে। সোমবার (৬ মে) গভীর রাতে খিলক্ষেতের তিনশ’ ফিটসংলগ্ন ডুমনী সড়কের পাশে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় দুই র‍্যাব সদস্য আহত হয়েছেন।

র‍্যাব-১ এর এসপি মো. কামরুজ্জামান বলেন, গোন সংবাদের ভিত্তিতে আনুমানিক রাত ১টার দিকে র‌্যাব একদল মাদক ব্যবসায়ীকে ধরতে তিনশ’ ফিট এলাকায় অভিযানে যায়। টের পেয়ে মাদক ব্যবসায়ীরা র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। েএতে র‌্যাবের দুই সদস্য আহত হন।

আত্মরক্ষার্থে র‌্যাবও পাল্টা গুলি ছোড়ে। একপর্যায়ে তারা পালিয়ে যায়। এসময় ঘটনাস্থলে একজনকে পড়ে থাকতে দেখা যায়। তাৎক্ষণিক তাকে কুর্মিটোলা হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

তিনি জানান, ঘটনাস্থল থেকে একটি বিদেশি পিস্তল, আনুমানিক দুই হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে। নিহত ব্যক্তির পরিচয় এখনো জানা যায়নি। তার বয়স আনুমানিক ৩৭ বছর।

মুন্সীগঞ্জ :

জেলায় র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী সুজন নিহত হয়েছে। সোমবার ( ৬ মে) গভীর রাতে এ ‘বন্দুকযুদ্ধ’ হয়। র‌্যাব এক বার্তায় এ তথ্য জানিয়েছে।

বার্তায় আরও জানানো হয়, ঘটনাস্থল থেকে বিদেশি পিস্তল ও বিপুল পরিমাণ ইয়াবা জব্দ করা হয়েছে। এই ঘটনায় র‌্যাবের এক সদস্য আহত হন।

রংপুর :

জেলার গঙ্গাচড়া উপজেলার পূর্ব ইছলী এলাকায় পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ শীর্ষ সন্ত্রাসী শহিদুল ইসলাম সুমন নিহত হয়েছে। সোমবার (৬ মে) রাতে এ ঘটনা ঘটে। রংপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সার্কেল এ সাইফুর রহমান এ তথ্য জানিয়েছেন।

পুলিশ জানায়, লালমনিরহাটের কালিগঞ্জ উপজেলার রুদ্রেশ্বর গ্রামের সুমনকে গঙ্গাচড়া থানা পুলিশ গ্রেফতার করার পর সোমবার রাতে তাকে নিয়ে পুলিশের একটি দল অস্ত্র উদ্ধার অভিযান নামে। তার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী গঙ্গাচড়া উপজেলার মহিপুর ইউনিয়নের চর ইছলী এলাকায় গেলে সেখানে আগে থেকে ওঁৎ পেতে থাকা তার সহযোগীরা পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে গুলি ছোড়ে। এসময় পুলিশও পাল্টা গুলি করে। এতে ঘটনাস্থলে সুমন নিহত হয়। তার লাশের পাশ থেকে একটি ওয়ানশুটার গান ও ২২ পিস ইয়াবা উদ্ধার করেছে পুলিশ।

এ ঘটনায় পাঁচ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। তাদের স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

সাইফুর রহমান আরও জানান, সুমন একজন কুখ্যাত সন্ত্রাসী। তার বিরুদ্ধে, নারী অপহরণ করে ধর্ষণ, মাদক ব্যবসাসহ সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের অভিযোগে ১০টি মামলা রয়েছে। ময়না তদন্তের জন্য লাশটি রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

0Shares





Related News

Comments are Closed