Main Menu

করোনা: সিলেটের সব দৈনিকের প্রকাশনা বন্ধ

বৈশাখী নিউজ ডেস্ক: আজ বৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ) থেকে সিলেটের সব দৈনিক পত্রিকার প্রকাশনা সাময়িক বন্ধ করা হয়েছে।

করোনাভাইরাস পরিস্থিতির কারণে সরকারে সাধারণ ছুটি ঘোষণা, গণপরিবহণ বন্ধ, করোনারোধে সংবাদপত্র এজেন্ট, হকারদের পত্রিকা বিক্রি বন্ধ, সর্বোপরি পত্রিকায় কর্মরত সাংবাদিক ও অন্যদের ঝুঁকিমুক্ত রাখতেই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এবং সম্পাদকদের সিদ্ধান্তে সিলেটের দৈনিক পত্রিকাগুলোর প্রকাশনা সাময়িক স্থগিত করা হয়। সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না আসা পর্যন্ত পত্রিকাগুলোর প্রকাশনা বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট সম্পাদকরা।

বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রামণ থেকে সংবাদকর্মীসহ সংশ্লিষ্টদের সুরক্ষায় গত মঙ্গলবার থেকে সাময়িক স্থগিত ঘোষণা করা হয় দৈনিক শ্যামল সিলেট’র প্রকাশনা। প্রকশানা সামষিক বন্ধ রাখার বিষয়টি সিলেটের জেলা প্রশাসককে লিখিতভাবে অবহিত করেছেন শ্যামল সিলেট’র নির্বাহী সম্পাদক আবদুল মুকিত।
তবে, শ্যামল সিলেট’র অনলাইন ভার্সন চালু রয়েছে।

শ্যামল সিলেট সাময়িক প্রকাশনা বন্ধের পরদিন সাময়িক বন্ধ ঘোষণা করা হয় সিলেটের প্রাচীনতম দৈনিক যুগভেরী ও দৈনিক একাত্তরের কথার প্রকাশনা।

আর আজ বৃহস্পতিবার থেকে সিলেটের ডাক, দৈনিক জালালাবাদ, দৈনিক সিলেটবাণী, দৈনিক সবুজ সিলেট, দৈনিক শুভ প্রতিদিন, দৈনিক সিলেট মিরর, দৈনিক জৈন্তাবার্তা ও সিলেটের দিনকাল’র প্রকাশনাও সাময়িক বন্ধ হয়ে গেলো।

তবে, দৈনিক জালালাবাদ’র অনলাইন ভার্সন চালু থাকবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন পত্রিকাটির সম্পাদক মুক্তাবিস উন নূর।

দৈনিক উত্তরপূর্ব পত্রিকার প্রধান আজিজ আহমদ সেলিম বলেন, ২৬ মার্চ পত্রিকার বর্ষপূর্তি সংখ্যা ও ক্রোড়পত্র প্রকাশের মধ্যদিয়ে উত্তরপূর্বের প্রকাশনা সাময়িক স্থগিত করা হয়েছে। তিনি বলেন, সাংবাদিকদের সুরক্ষায় পত্রিকা বন্ধ রাখা প্রয়োজন। কেননা, অনেক প্রতিষ্ঠানও পত্রিকা না রেখে ভাইরাস সংক্রমনের ভয়ে হকারদের ফিরিয়ে দিচ্ছেন।

এ বিষয়ে দৈনিক মিরর সম্পাদক আহমেদ নুর বলেন, ‘করোনাভাইরাস বাংলাদেশে বিস্তার রোধে, গণপরিবহন বন্ধ এবং পত্রিকা বিপণনজনিত সমস্যাসহ উদ্ভূত পরিস্থিতিতে বৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ) থেকে প্রকাশনা আপাতত বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।
তিনি বলেন, করোনা ভাইরাস থেকে সাংবাদিকদের সুরক্ষায় ইচ্ছা থাকা স্বত্বেও হ্যান্ড স্যানিটিাইজেশন ও পিপিআই দেওয়া যাচ্ছে না। তাছাড়া পত্রিকার প্রকাশনা অব্যাহত রাখলেও পাঠকের কাছে পৌছানো যাবেনা, হকার না থাকলে। তাই আপাতত প্রকাশনা বন্ধ রাখা হচ্ছে। তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন, সরকার সাংবাদিকদের সুরক্ষায় পাশে দাড়াবে। হ্যান্ড স্যানিটাইজেশন ও পিপিই নিয়ে পাশে দাড়াবে।

উত্তরপূর্ব পত্রিকা্র নির্বাহী সম্পাদক তাপস দাশ পুরকায়স্থ বলেন, বর্তমান অবস্থায় সাংবাদিক ও হকাররা মারাত্নক ঝুঁকির মধ্যে আছেন। রাষ্ট্রের ৪র্থ স্তম্ভ সংবাদপত্র ও সাংবাদিকদের সুরক্ষার কথা চিন্তা করে সরকার পিপিআই প্রদান করলে অন্তত; প্রকাশনা চালু রাখা যেতো। আর পত্রিকা অন্তত; ৩০/৩৫ হাত ছুঁয়ে গ্রাহকের কাছে পৌছায়। তাতে সংক্রমিত হওয়ার সন্দেহ থেকে গ্রাহকরা হকারদের পত্রিকা দিতে নিরুৎসাহিত করছেন।

দৈনিক শ্যামল সিলেট’র নির্বাহী সম্পাদক আবদুল মুকিত বলেন, মরণঘাতি করোনা ভাইরাস বিশ্বব্যাপী হানা দিয়েছে। বাংলাদেশেও এর সংক্রমন বাড়ছে। আর দেশের মধ্যে সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ অঞ্চল সিলেট। তাই সাংবাদিক ও সংবাদপত্রের সঙ্গে জড়িতদের সুরক্ষার চিন্তা করেই আগে থেকে পত্রিকার প্রকাশনা সাময়িক স্থগিত রাখা হয়েছে। কেননা, ইচ্ছা থাকা স্বত্বেও সংকটের কারণে সাংবাদিক ও সংবাদপত্রের সঙ্গে জড়িতদের পার্সোনাল প্রটেকশন ইকুইপম্যান্ট (পিপিআই) দিতে পারছি না। তিনি বলেন, পত্রিকা প্রকাশনা স্থগিত থাকলেও শ্যামল সিলেট’র অনলাইন ভার্সন চালু রয়েছে।

বুধবার থেকে দৈনিক একাত্তরের কথা’র প্রকাশনা সাময়িক বন্ধ রাখা হয়েছে বলে জানিয়ে পত্রিকাটির নির্বাহী সম্পাদক মঈন উদ্দিন বলেন, মরণব্যাধী করোনা ভাইরাসের কারণে যে নাজুক অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে, তাতে দেশের উত্তরপূর্ব জনপদেও এই হাওয়া লেগেছে। সাধারণ মানুষ থেকে সংবাদ কর্মীরা এ নিয়ে উদ্বিগ্ন। সরকার সংবাদ কর্মীদের সুরক্ষা দিলে কাজ করা যেতো। তবে পত্রিকার অনলাইন ভার্সন চালু রয়েছে।

১৯৩০ সাল থেকে প্রকাশনায় থাকা সিলেটের প্রাচীনতম দৈনিক যুগভেরী পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক অপূর্ব শম্মা বলেন, বর্তমান করোনা ভাইরাসের কারণে সৃষ্ট পরিস্থিতে আমরা আমাদের অবস্থান থেকে সংকট মোবাবেলায় উদ্যোগী হয়েছি। আপনিও উদ্যোগী হোন। তিনি বলেন, সাংবাদিকদের সুরক্ষার বিষয়টি চিন্তা করে পত্রিকাটির প্রকাশনা সাময়িক বন্ধ রেখেছি।

দৈনিক সবুজ সিলেট’র নির্বাহী সম্পাদক দিপু সিদ্দিকী বলেন, বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় বৃহস্পতিবার থেকে পত্রিকাটির প্রকাশনা সাময়িক বন্ধ রাখা হবে।

একইভাবে বৃহস্পতিবার থেকে শুভ প্রতিদিন পত্রিকাও বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন পত্রিকার ব্যবস্থাপনা সম্পাদক ফয়ছল আহমদ মুন্না।

দৈনিক কাজিরবাজার পত্রিকার বার্তা সম্পাদক সুয়েব বাসিত বলেন, কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বন্ধের বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। মূলত; ২৯ মার্চ পত্রিকার বর্ষপূর্তি। বর্ষপূর্তি প্রকাশনার পর প্রকাশনা সাময়িক বন্ধের সিদ্ধান্তের দিকে যেতে হতে পারে।

দৈনিক সিলেটের ডাক পত্রিকার চিফ রিপোর্টার সিরাজুল ইসলাম তাদের সুরক্ষায় বৃহস্পতিবার থেকে প্রকাশনা সাময়িক বন্ধ রাখার উদ্যোগ নিয়েছি। আগে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা প্রয়োজন। তবে পত্রিকার অনলাইন ভার্সন চালু রাখার সিদ্ধান্তের কথা জানান তিনি।

0Shares





Related News

Comments are Closed