Main Menu
শিরোনাম
সিলেটে কলহের জেরে স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা, স্বামী আটক         সিলেটে ঘন ঘন দুর্ঘটনার প্রতিবাদে তিন উপজেলাবাসীর অবস্থান         ভারতে কারাভোগের পর দেশে ফিরলেন ৬ বাংলাদেশি         সিলেটে আরো ১৩ জনের করোনা শনাক্ত, সুস্থ ২০         সুনামগঞ্জে উদ্বোধনের আগেই ভেঙে পড়লো সেতু!         হবিগঞ্জে আ.লীগ প্রার্থী সেলিম বিজয়ী         সিলেটে দুর্ঘটনাস্থলে কাফনের কাপড় পড়ে অবরোধ, ৫ দাবি         সিলেটে দুই বাসের সংঘর্ষে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৮         সিলেটে দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ৭         মাধবপুরে গার্মেন্টসকর্মীকে ধর্ষণ         শপথ নিলেন গোলাপগঞ্জ পৌর মেয়রসহ নির্বাচিত কাউন্সিলররা         রাজনগরে ৪০০ আ.লীগ নেতাকর্মীর নামে মামলা        

এক সময়ের পরিত্যক্ত জমি এখন চায়ের রাজ্য!

মো.সফিকুল আলম দোলন, প্রতিনিধি পঞ্চগড়: সমতল ভূমির চা বাগান হিসেবে দেশের প্রথম এবং পার্বত্য এলাকা ও বৃহত্তর সিলেটের পর তৃতীয় চা অঞ্চল হিসেবে জায়গা করে নিয়েছে হিমালয়ের পাদদেশে উত্তরের জনপদ পঞ্চগড়। চা বাগানের জন্য পাহাড়ি ঢালু জমি লাগবে-এমন ধারণাই যুগ যুগ ধরে প্রচলিত। সমতল ভূমিতে চা উৎপাদন করে এ প্রথা থেকে বেরিয়ে আসতে সক্ষম হয়েছেন পঞ্চগড়ের চাষিরা। শখের বশে নয়, রীতিমতো বাণিজ্যিক উৎপাদনে সফল কয়েকশ’ চাষি। মানসম্মত হওয়ায় বাজার বিস্তৃত হয়েছে বহির্বিশ্বেও। একসময়কার পরিত্যক্ত কিংবা এক ফসলি জমি এখন চায়ের রাজ্য।

২০০২ সালে সাড়ে ৪০০ একর জমির গণ্ডিটা এখন প্রায় ৯ হাজার একরে পৌঁছেছে। গত বছর বড় ৮টি ও ছোট ৫ হাজার ১০০টি বাগান থেকে উৎপাদিত সবুজ পাতা প্রায় সাড়ে চার কোটি কেজি। প্রক্রিয়াজাতের পরে চায়ের পরিমাণ দাঁড়ায় ৯৬ লাখ কেজি। চাষিরা জানান, একবার রোপণের পর ফসল তোলা যায় দীর্ঘদিন।

এক চাষি বলেন, ‘জমিগুলো আগে পরিত্যক্ত হিসেবে পড়ে থাকত। আমরা এখন পরিত্যক্ত জমিগুলোলতে চা বাগান করেছি। চায়ের ফলনও খুব ভালো হচ্ছে।৪০ দিন পরপর পাতা সংগ্রহ করে বিক্রি হয় ১৮টি চা কারখানায়। এতে চা চাষিরা নগদ অর্থ পাচ্ছে যা চা চাষে এলাকায় ব্যাপক সাড়া ফেলেছে ।

0Shares





Related News

Comments are Closed