Main Menu
শিরোনাম
সিলেটে করোনায় আক্রান্ত বেড়ে ১২২৭৯, মৃত্যু ২১১         জাফলংয়ে হচ্ছে দেশের প্রথম ‘ভূতাত্ত্বিক জাদুঘর’         রাতারগুলের ওয়াচ টাওয়ারে উঠতে নিষেধাজ্ঞা জারি         সিলেট তথ্য অফিসের উপ পরিচালক মিলি করোনাক্রান্ত         সিলেটের দুই ল্যাবে ২০ জনের করোনা শনাক্ত         শাবির ল্যাবে ৭ জনের করোনা শনাক্ত         জৈন্তাপুরে ভারতীয় ৫৪ গরু-মহিষ আটক, নিলামে বিক্রি         জকিগঞ্জে ৩ দফা পুলিশি বাধায় সভা করলো যুবদল         সিলেটে করোনায় আক্রান্ত বেড়ে ১২২৬৫, মৃত্যু ২১১         মাধবপুরে এনা বাসের চাপায় বৃদ্ধার মৃত্যু         আজমিরীগঞ্জে অগ্নিকান্ডে ৩৯টি দোকান পুড়ে ছাই         ওসমানীর ল্যাবে ২০ জনের করোনা শনাক্ত        

যে কারণে ঝাঁকে ঝাঁকে ধরা পড়ছে ইলিশ

বৈশাখী নিউজ ডেস্ক : গত দুই সপ্তাহ ধরে জেলেদের জালে ঝাঁকে ঝাঁকে ধরা পড়ছে ইলিশ। এর ফলে ইলিশের দামও তুলনামূলকভাকে কমে গেছে। বলা হচ্ছে, গত কয়েকবছর আগেও বাংলাদেশের মানুষ এমন দামে ইলিশ কেনার কথা স্বপ্নেও ভাবতে পারত না।

মৎস্য অধিদফতর টানা ৬৫ দিন ইলিশ আরোহণে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছিল। এ ছাড়া করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে তারও অনেক আগে থেকেই বন্ধ হয়ে যায় ইলিশ মাছ ধরার স্বাভাবিক কার্যক্রম।

এত দীর্ঘ বিরতির পর ২৩শে জুলাই রাত থেকে নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়ার পর থেকে জেলেরা ট্রলার, বোট বোঝাই করে ইলিশ ধরতে থাকে।

বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, দীর্ঘসময় মাছ ধরা বন্ধ থাকায় সেইসঙ্গে এ বছরের বৃষ্টিপাত বেশি হওয়ার কারণে নদীতে পানি প্রবাহ বেড়েছে এবং ইলিশ আগের চাইতে বেশি ধরা পড়েছে।

ইলিশের উৎপাদন বাড়ার কারণ হিসেবে গবেষক নিয়ামুল নাসের বিবিসি বাংলাকে জানিয়েছেন, বাংলাদেশের নদীর পানির গুনাগণ ও প্রবাহ ইলিশের প্রজননের জন্য এখনও অনুকূলে আছে। এ কারণে ডিমওয়ালা মা ইলিশ সাগর থেকে স্রোতযুক্ত মিঠাপানির নদীতে এসে ডিম ছাড়ে।

তিনি বলেন, ইলিশ মাছ জুলাই মাসের দিকে সমুদ্র থেকে নদীতে আসতে শুরু করে। এ সময় তারা পদ্মার দিকেই আসে। কারণ পদ্মার পানির স্তর ও গভীরতা অন্য নদীর চাইতে তখন বেশি। এ কারণে এত বেশি মাছ পাওয়া যায়।

এছাড়া সামুদ্রিক নিম্নচাপ এবং সাইক্লোনের একটা প্রভাব থাকার কারণেও ইলিশের উৎপাদন বেড়েছে বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

তবে নদীর প্রবাহ ও গভীরতা দিন দিন কমে আসার কারণে এই ইলিশের আহরণ টেকসই থাকবে কিনা সেটা নিয়েও আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

0Shares





Related News

Comments are Closed