Main Menu

দাড়িয়ে থাকা ট্রাকের পিছনে প্রাইভেট কারের ধাক্কা, নিহত ১

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: সিলেট-সুনামগঞ্জ মহাসড়কের দিরাই রাস্তা এলাকায় দাড়িয়ে থাকা থাকা নষ্ট অচল ট্রাকের পিছনে ধাক্কা দিয়ে প্রাইভেট কার দুমড়ে মুচড়ে যায়। এতে একজন নিহত ও অপর ২ জন আহত হয়।

বৃহস্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাত ড়েটার দিকে এ দূর্ঘটনা ঘটে। এতে ড্রাইভার সহ তিনজন গুরুতর হন। এদের মাঝে সেলিম মিয়া (৩৮) কে গুরুতর অবস্থায় সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে তিনি মারা যান। নিহত সেলিম মিয়া ছাতক উপজেলার দক্ষিণ বড়কাপনের আফতর মিয়ার ছেলে।

এ ঘটনায় কার চালক শিবলু (৩০) এর অবস্থা গুরুতর হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে সিলেটে রেফার করা হয়। অপর গুরুতর আহত অনোয়ার হোসেন (৪৫) কৈতক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

জয়কলস হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ি সুত্র জানায়, দুর্ঘটনায় কবলিত প্রাইভেট কারের যাত্রীরা সুনামগঞ্জ জেলা শহর থেকে নিজ বাড়িতে যাওয়া সময় পথিমধ্যে সুনামগঞ্জ-সিলেট মহাসড়কের দিরাই রাস্তার পূর্বপাশের বামদিকে পার্কিংরত একটি নষ্ট অচল ট্রাকের পিছনে সজোরে ধাক্কা দিয়ে দুর্ঘটনা কবলিত হয়। এতে গুরুতর জখম হয় দক্ষিণ বড়কাপনের আফতাব মিয়ার ছেলে সেলিম মিয়া (৩৮)। তিনি রাতেই সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে মারা যান। অপরজন শান্তিগঞ্জ উপজেলার নওয়া গাও এলাকার কমরু মিয়ার ছেলে আনোয়ার হোসেন (৪৫) ও গাড়ি চালক শিবলু মিয়া (৩০) দক্ষিণ সুনামগঞ্জের বেতগুনা গ্রামের মৃত লাল মিয়ার ছেলে।

সড়ক দুর্ঘটনার খবর পেয়ে রাতেই হাইওয়ে পুলিশ টিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। আলামত স্বরূপ ক্ষতিগ্রস্ত মিনি মাইক্রো কার ও ট্রাক জব্দ করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী গুলজার আহমদ বলেন, রাত অনুমান দেড়টার দিকে হঠাৎ বিকট শব্দের আওয়াজ শুনে দৌড়ে এসে দেখি রাস্তার পূর্বপাশে পার্কিং এ থাকা ট্রাকের পিছনে ধাক্কা দিয়ে মিনি মাইক্রো কার বেশ অনেকটা দুরত্বে পরে রয়েছে। পরে আমি সহ অন্যান্যরা তাদেরকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে সিএনজি দিয়ে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠিয়ে দেই। সড়ক দুর্ঘটনার খবর পেয়ে রাতেই সুনামগঞ্জ সদর থানা ও শান্তিগঞ্জ থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে আসেন।

অপর প্রত্যক্ষদর্শী দিরাই সিএনজি ষ্ট্যান্ডের ম্যানেজার বলেন, দুর্ঘটনা ঘটার কিছু পরে আমার কাছে খবর আসলে অমি ঘটনাস্থলে আসি এবং দেখি পার্কিং এ থাকা ট্রাকের পিছনে ধাক্কা দিয়ে কার উল্টে রাস্তার পশ্চিম দিকে পরে রয়েছে। আমরা আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠিয়ে দেই। পরে জানতে পারি একজন মারা গেছেন।

আরেক প্রত্যক্ষদর্শী ট্রাকচালক মিজান বলেন, ঘটনার সময় দিরাই রাস্তার পূর্বপাশে দুইটি কাবার্ড ভ্যান ও দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত ট্রাকগুলো পার্কিং-এ ছিলো। এখানে আমরা ট্রাক চালকেরা প্রায় সময় গাড়ি পার্কিং করে খাবার খাই একটু জিরিয়ে নেই। তিনি বলেন, আমি এখানে রাতের খাবার খাওয়া অবস্থায় ছিলাম। এদিকে আওয়াজ শুনে দ্রুত এগিয়ে আসি এবং দেখি রাস্তার একপাশে মিনি মাইক্রো কারটি উল্টে পরে আছে। তখন আমরা বেশ কয়েকজন মিলে দুর্ঘটনা কবলিত গাড়িটিকে সোজা করলাম আর তাদের উদ্ধার করে সিএনজি করে হাসপাতালে দিকে পাঠিয়ে দিলাম। এদের মাঝে একজনের শরীরের অবস্থা খুববেশি খারাপ ছিলো। পরে জানতে পারলাম একজন মারা গেছেন।

এ ব্যাপারে সুনামগঞ্জ জেলা ট্রাক পিকাপ কাভার্ডভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের সদর উপজেলা আঞ্চলিক শাখা কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোঃ আব্দুল জাহান বলেন, সিলেট আঞ্চলিক কমিটির প্রতিনিধি সকালে আমার সাথে যোগাযোগ করে জানিয়েছেন দুর্ঘটনার কথা। পরবর্তীতে আমি এসে দুর্ঘটনার স্থান দেখেছি ট্রাকটি নষ্ট অচল অবস্থায় রাস্তার পূর্বপাশে পার্কিংএ রয়েছে এবং সবার কাছ থেকে ঘটনার সম্পূর্ণ বিবরণ শুনেছি। এখানে আমাদের ট্রাকের কোনো দোষ নেই। তাই তিনি কর্তৃপক্ষের নিকট দাবি জানিয়েছেন ট্রাকটিকে কোনোরূপ ঝামেলায় না জড়িয়ে ফিরিয়ে দেওয়ার।

এব্যাপারে জয়কলশ হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির এসআই আফাজুল বলেন, সুনামগঞ্জ-সিলেট মহাসড়কের দিরাই রাস্তায় সড়ক দুর্ঘটনার খবর পেয়ে রাতেই হাইওয়ে পুলিশ টিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন এবং আলামত হিসেবে ক্ষতিগ্রস্ত প্রাইভেট কার ও ট্রাক জব্দ করা হয়েছে এবং আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

0Shares





Related News

Comments are Closed