Main Menu
শিরোনাম
সিলেটের ৬ উপজেলায় জেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ বিতরণ         তাহিরপুর সীমান্তে ভারতীয় কয়লার চালান জব্দ         দিরাইয়ে জুমার নামাজে এসে মারা গেলেন মুসুল্লি         সিলেটে ডায়রিয়ার প্রকোপ, ৭ দিনে আক্রান্ত সাড়ে ৫শ’         কুলাউড়ায় স্কুল ছাত্রীকে গণধর্ষণ, আটক ২         পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় এলামনাই এসোসিয়েশনের ত্রাণ বিতরণ         গোয়াইনঘাটে বন্যার্তদের মাঝে বিএনপির ত্রাণ বিতরণ         জিয়ার ৪১তম শাহাদাতবার্ষিকীতে সিলেটে বিএনপির ২দিনের কর্মসূচী         হবিগঞ্জে মন্ত্রীপরিযদ সচিব ও সাবেক তথ্য সচিব         দাউদপুর ইউনিয়ন পরিষদের উন্মুক্ত বাজেট ঘোষণা         সিলেটে ভূমি নিয়ে বিরোধে দু’পক্ষের সংঘর্ষ, আহত ২০         সিলেটে বন্যায় ক্ষতি ১১০০ কোটি টাকা, বেশি ক্ষতি সড়ক, কৃষি ও মাছের        

ইউপি সদস্যকে ‘টাকার মালা পরিয়ে’ সমালোচনায় এসআই

বৈশাখী নিউজ ডেস্ক: হবিগঞ্জের মাধবপুরে নবনির্বাচিত এক জনপ্রতিনিধির সাথে এক পুলিশ সদস্যের ছবি নিয়ে সমালোচনা দেখা দিয়েছে।

ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া ওই ছবিতে দেখা যায়, জনপ্রতিনিধির গলায় টাকার মালা পরিয়ে দিচ্ছেন ওই পুলিশ সদস্য। যিনি মাধবপুর থানার একজন উপ পরিদর্শক (এসআই)।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত ৫ জানুয়ারি মাধবপুর উপজেলার ১১টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে উপজেলার বাঘাসুরা ইউনিয়নে ভ্রাম্যমাণ আদালতের টিমের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দায়িত্ব পালন করেন মাধবপুর থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) মুমিনুল ইসলাম।

অভিযোগ উঠেছে, নির্বাচনের পরদিন (৬ জানুয়ারি) বাঘাসুরা ইউনিয়নে যান মুমিনুল ইসলাম। এ সময় তিনি বিজয়ী প্রার্থীদের গলায় ফুলের ও টাকার মালা পরিয়ে দেন।

পুলিশ সদস্যের এমন কর্মকাণ্ডে স্থানীয়দের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে।

এর মধ্যে ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের (কালিকাপুর) সদস্য পদে বিজয়ী প্রার্থী তাজুল ইসলাম মহালদারকে তার নির্বাচনী কার্যালয়ে গিয়ে টাকার মালা পরিয়ে দেয়ার একটি ছবি ফেসবুকে ভাইরাল হয়। ছবিটি ভাইরালের পর বিষয়টি নিয়ে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দেয় ফেসবুক ব্যবহারকারীদের মধ্যে। অনেকে পুলিশকে নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করেন।

অভিযোগ রয়েছে, ইউপি সদস্য তাজুল ইসলামকে মালা পরিয়ে দেওয়ার আগে নির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান সাহাব উদ্দিন আহমেদকেও টাকার মালা পরিয়েছেন তিনি।

অভিযোগ প্রসঙ্গে অভিযুক্ত উপ পরিদর্শক (এসআই) মুমিনুল ইসলাম বলেন, ‘প্রতিদিন আমাদেরকে অনেকগুলো বিষয় নিয়ে কাজ করতে হয়। এর মধ্যে দু’একটি কাজ ভুল হয়ে যায়। আপনারা আমাকে একটু দেখে নিয়েন।’

জানতে চাইলে মাধবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ‘সামাজিকতার খাতিরে এটা করা যায়। তবে পুলিশের পোশাক পরিয়ে টাকার মালা পরানোটা তার ঠিক হয়নি।

মাধবপুর সার্কেলের সহকারি পুলিশ সুপার (এএসপি) মহসিন আল মুরাদ বলেন, ‘পুলিশ সদস্য হিসেবে তিনি মালা দিতে পারেন কিনা সেটি আমার জানা নেই। আমি বিষয়টি সম্পর্কে খোঁজ-খবর নিয়ে আপনাকে জানাচ্ছি।’

সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) হবিগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি অ্যাডভোকেট ত্রিলোক কান্তি চৌধুরী বিজন বলেন, ‘আইন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য হিসেবে তিনি এটা করতে পারেন না। এটা একদম অনৈতিক। তার কাছে সবাই সমান। তাহলে তিনি কেন একজনের গলায় টাকার মালা পরাবেন?

0Shares





Related News

Comments are Closed

%d bloggers like this: