Main Menu
শিরোনাম
দিরাই পৌর নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থী ইকবাল চৌধুরী         সিলেটে আরও ৩৮ জনের করোনা শনাক্ত         বাহুবলে গৃহবধূকে ধর্ষণের পর হত্যা, শ্বশুর গ্রেপ্তার         কমলগঞ্জে কলেজ ছাত্রীর বিষপানে আত্মহত্যা         সিলেটে গত ২৪ ঘন্টায় ৪১ জনের করোনা শনাক্ত         কামালবাজার ইউপি নির্বাচনে একঝাঁক প্রার্থী মাঠে         গোয়াইনঘাটে গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার, স্বামী আটক         কমলগঞ্জে গ্রেপ্তার আতংকে ঘরে ঘরে ঝুলছে তালা         সিলেট শিক্ষা বোর্ডের নতুন চেয়ারম্যান রমা বিজয় সরকার         সিলেটে একদিনে আরো ৩৬ জনের করোনা শনাক্ত         সিলেটে মাস্ক না পরায় ১০৭ জনকে জরিমানা         গোলাপগঞ্জে বিজ্ঞান মেলার উদ্বোধন        

জাবিতে কর্মচারীর উপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন

জাবি প্রতিনিধি: জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় কর্মচারী সমিতির সাধারণ সম্পাদক খাইরুল ইসলামের বিরুদ্ধে এক কর্মচারীর উপর ‘সন্ত্রাসী হামলার’ অভিযোগ উঠেছে। এ হামলার প্রতিবাদ ও বিচার দাবিতে মানবন্ধন করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শতাধিক কর্মচারী।

রবিবার বেলা সাড়ে ১১ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার সংলগ্ন সড়কে বিশ্ববিদ্যালয় কর্মচারী ইউনিয়নের নেতা-কর্মীরা এ কর্মসূচি পালন করেন।

মানববন্ধনে উপস্থিত ক্ষুব্ধ কর্মচারীরা জানান, চাকুরীর প্রলোভনে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগের প্রেক্ষিতে গত বুধবার রাতে খাইরুল তার লোক দিয়ে বেগম সুফিয়া কামাল হলের হল অ্যাটেন্ড্যান্ট নাইম ইসলামের ওপর হামলা চালায়। হামলায় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে নাইমের মাথা ও হাত মারাত্মকভাবে জখম হয়।

এ ঘটনার প্রতিবাদে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে খাইরুলের দ্রুত বিচার দাবি করেন কর্মচারী ইউনিয়নের নেতারা।

মানববন্ধনে কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি মোঃ শরীফ মিয়া বলেন, ‘কর্মচারী নেতা হয়েও অপর কর্মচারীকে খাইরুল তার লোক দিয়ে যেভাবে জখম করেছে তা অত্যন্ত নেক্কারজনক। অনতিবিলম্বে আমরা এ হামলার বিচার দাবি করছি। অন্যথায় আমরা কর্মচারীদের সাথে নিয়ে বৃহৎ কর্মসূচি দিতে বাধ্য হবো।’ আগামী চার কর্মদিবসের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার বিচারের আশ্বাস দিয়েছেন বলেও জানান শরীফ মিয়া।

হামলার বিচারের বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার রহিমা কানিজ বলেন, ‘কর্মচারি ইউনিয়নের নেতারা আমার সাথে দেখা করেছে। যত দ্রুত সম্ভব আমি তাদেরকে বিচারের আশ্বাস দিয়েছি। খাইরুলের বিরুদ্ধে এর আগেও আমরা একাধিক অভিযোগ পেয়েছি। আমি তদন্ত কমিটির সদস্য সচিবকে দ্রুততম সময়ের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন প্রদানের জন্য জানিয়েছি।’

উল্লেখ্য, কর্মচারী সমিতির সাধারণ সম্পাদক খাইরুল ইসলামের বিরুদ্ধে গত বছরের ১৫ ডিসেম্বর পিওন পদে চাকুরীর প্রলোভন দেখিয়ে ৫ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ করেন ভূক্তভোগী কর্মচারী নাইম। কিন্তু অভিযোগের প্রায় দশ মাস হয়ে গেলেও অদৃশ্য কারণে এর সুরাহা করেনি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এছাড়া, তাকে মারধর ও প্রাণনাশের হুমকি দেয়া হচ্ছে এই মর্মে তিনি এ বছরের ২৩ আগস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার বরাবর খাইরুলের বিরুদ্ধে আরও একটি অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

 

0Shares





Related News

Comments are Closed