Main Menu

বগুড়া জেলা লকডাউন

বৈশাখী নিউজ ডেস্ক: করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে বগুড়া জেলা লকডাউনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন জেলা প্রশাসন।

মঙ্গলবার (২১ এপ্রিল) সিভিল সার্জনের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসক ফয়েজ আহাম্মদ বিকেল ৪টা থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত বগুড়া জেলাকে লকডাউন ঘোষণা করেন।

জেলা প্রশাসক ফয়েজ আহাম্মদ বলেন, করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে মঙ্গলবার সকালে এক জরুরি বৈঠকে সিভিল সার্জন ও সংশ্লিষ্ট অন্যদের আবেদনে পরিপ্রেক্ষিতে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। লকডাউন চলাকালে এই জেলায় জনসাধারণের প্রবেশ ও প্রস্থান নিষিদ্ধ। জাতীয় ও আঞ্চলিক সড়ক, মহাসড়ক ও রেলপথে অন্য কোনও জেলা বা উপজেলা হতে কেউ প্রবেশ করতে বা এই জেলা থেকে অন্য জেলায় যেতে পারবেন না। জেলার ভেতরে আন্তঃজেলা যাতায়াতের ক্ষেত্রেও একই নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকবে।

এছাড়া সব ধরনের গণপরিবহণ, জনসমাগম বন্ধ থাকবে। তবে জরুরি সেবা, চিকিৎসা সেবা, কৃষিপণ্য সংগ্রহ, খাদ্য সরবরাহ ও সংগ্রহ, বিদ্যুৎ, গ্যাস, ফায়ার সার্ভিস, টেলিফোন, ইন্টারনেট, ব্যাংকিং সেবা, ওষুধ শিল্প সংশ্লিষ্ট যানবাহন, কর্মী ইত্যাদি এবং সরকার কর্তৃক সময়ে সময়ে ঘোষিত অন্যান্য জরুরি ]সেবা এর আওতা বহির্ভূত থাকবে।

জনস্বার্থে জারি করা এই আদেশ পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত বহাল থাকবে। আদেশ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সিভিল সার্জন গওসুল আজিম বলেন, অন্য জেলার মতো লকডাউনের সব শর্তই মানা হবে।

বগুড়ায় পাঁচদিনের ব্যবধানে ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জফেরত দুই ব্যক্তি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন। দু’জনই জেলার আদমদীঘি উপজেলার বাসিন্দা।

গত বৃহস্পতিবার (১৬ এপ্রিল) প্রথম যিনি শনাক্ত হয়েছেন, তিনি পুলিশের একজন কনস্টেবল। তার বাড়ি আদমদীঘি উপজেলার নশরৎপুর ইউনিয়নের সাঁওইল গ্রামে। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশে কর্মরত ২৯ বছর বয়সী ওই ব্যক্তি গত ১০ এপ্রিল ঢাকা থেকে বাড়িতে আসেন। ১৩ এপ্রিল তার নমুনা সংগ্রহ করে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজে পাঠানো হয়। ১৬ এপ্রিল রাতে তার রিপোর্ট আসে এবং সেখানে তাকে করোনা ভাইরাস পজিটিভ বলে উল্লেখ করা হয়। এর পরপরই পুরো আদমদীঘি উপজেলা লকডাউন ঘোষণা করা হয়। বর্তমানে ওই ব্যক্তি করোনা আইসোলেশন ইউনিট বগুড়া মোহাম্মদ আলী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

এদিকে সর্বশেষ মঙ্গলবার সকালে আদমদীঘি উপজেলাধীন সান্তাহার পৌরসভার সাহেব পাড়ার ২৮ বছর বয়সী এক ট্রাকচালককে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে ঘোষণা করে জেলা স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

0Shares





Related News

Comments are Closed