Main Menu

করোনা মোকাবেলায় বিএনপির ২৭ প্রস্তাব

বৈশাখী নিউজ ডেস্ক: করোনাভাইরাসে (কভিড-১৯) সৃষ্ট সংকট মোকাবিলায় সরকারকে স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি ২৭ দফা প্রস্তাবনা দিয়েছে বিএনপি। এই মহামারীর মধ্যে দেশের অর্থনীতিতে সম্ভাব্য মহাদুযোর্গ মোকাবেলায় সরকারের কাছে ৮৭ হাজার কোটি টাকার বিশেষ তহবিল গঠনের দাবি জানিয়েছে বিএনপি।

স্বল্পমেয়াদী খাতে ৬১ হাজার কোটি টাকা, মধ্য মেয়াদী খাতে ১৮ হাজার কোটি টাকা এবং অতিরিক্ত আরও ৮ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ রাখার প্রস্তাব করেছে দলটি।

শনিবার (৪ এপ্রিল) বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে এসব প্রস্তাবনা তুলে ধরেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এ সময় করোনাভাইরাসে সৃষ্ট সংকট মোকাবিলায় জাতীয় ঐকমত্যের ডাক দেন তিনি।

করোনা পরীক্ষা না করার সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল বলেন, এটা কি উদাসীনতা না উদ্দেশ্যপ্রণোদিত তা বোধগম্য নয়। এজন্য জাতিকে চড়া মূল্য দিতে হতে পারে।

তিনি বলেন, দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে। এখন প্রয়োজন পরীক্ষার কিট এবং চিকিৎসক-নার্সদের জন্য পিপিই সরবরাহ নিশ্চিত করা। জেলা-উপজেলা পর্যায়ে পর্যাপ্ত পরীক্ষা কিট, সম্পূর্ণ পৃথক কোয়ারেন্টিন ও আইসোলেশন কেন্দ্র স্থাপন, পর্যাপ্ত আইসিইউ স্থাপন ও ভেন্টিলেটর সরবরাহ, নিরাপদ দূরত্বে সম্পূর্ণ পৃথক হাসপাতাল স্থাপন করা।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, এই মুহূর্তে ডেঙ্গু দরজায় কড়া নাড়ছে। ইতোমধ্যে গত বছরের তুলনায় ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে। শাটডাউনের কারণে এডিস মশা নিধন কর্মকাণ্ড স্থবির হয়ে পড়েছে।

তিনি বলেন, কক্সবাজার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে যাতে করোনাভাইরাস না ছড়ায় সে বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে।

মির্জা ফখরুল বলেন, মহামারির ভয়াবহতা অনুভব করে বিএনপিই প্রথম জনগণের মাঝে গণসচেতনতা মূলক সচিত্র লিফলেট ও মাস্ক বিতরণ শুরু করে। ইতোমধ্যে সারাদেশে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হচ্ছে। যতদিন প্রয়োজন আমাদের সীমিত সক্ষমতার মধ্যে এ কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।

তিনি আরও বলেন, দেশের অর্থব্যবস্থা ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে। বৈষম্যমূলক তথাকথিত উন্নয়ন, সুশাসনের অভাব এবং আইনের শাসনের অভাবের ঠিক এই সময়ে যোগ হয়েছে করোনাভাইরাসের ছোবল। এই মহামারি থেকে বের হতে হলে সরকারের দিক থেকে দৃশ্যমান পদক্ষেপ নিতে হবে।

করোনা সংকট মোকাবিলায় স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি ২৭ দফা প্রস্তাবনা তুলে ধরে বিএনপি মহাসচিব বলেন, জাতীয় ও বৈশ্বিক মহাদুর্যোগ মোকাবিলায় যে কোনো গঠনমূলক ও কল্যাণমুখী উদ্যোগে শামিল হতে বিএনপি প্রস্তুত রয়েছে।

তিনি বলেন, এ দুর্যোগে দম্ভ, অহংকার ও রাজনৈতিক প্রতিহিংসা পরিহার করে সরকারকেই এই ঐকমত্য প্রতিষ্ঠায় অগ্রণী ভূমিকা গ্রহণ করতে হবে।

মির্জা ফখরুল বলেন, পোলট্রিসহ সব ধরনের কৃষিঋণের কিস্তি আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত মওকুফ করতে হবে।

এছাড়া দলের উদ্যোগে নয়, ত্রাণ সাহায্য সেনাবাহিনীর মাধ্যমে করারও দাবি জানান বিএনপি মহাসচিব।

0Shares





Related News

Comments are Closed