Main Menu

তাহিরপুরে সড়ক সংস্কারের দাবি জানালো শিক্ষার্থীরা

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: সড়ক সংস্কারের দাবিতে সুনামগঞ্জের তাহিরপুরের বাদাঘাট পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয়ের হাজারো শিক্ষার্থী শ্রেণিকক্ষ ছেড়ে সড়কে দাড়িয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছে।

বছরের পর বছর ধরে জনচলাচল ও বিদ্যালয়ের যাতায়াতগামী সড়কে জলাবদ্ধতা, কাঁদামাটি, ময়লার স্তুপ না সড়ানোর কারনে অভিনব প্রতিবাদ এবং সংশ্লিস্টদের নিকট সড়ক সংস্কারের দাবি তুলে ধরতে সম্প্রতি হাজারো শিক্ষার্থী নেমে আসে সড়কে।

উপজেলার বাদাঘাট পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয় এবং অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা জানান, বাদাঘাট পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয়, জয়নাল আবেদীন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, রহমানীয়া আওয়ামী দাখিল মাদ্রাসা, বাদাঘাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বাদাঘাট সরকারি ডিগ্রী কলেজ ও অন্যান্য একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে থাকা ৭ থেকে ৮ হাজার শিক্ষার্থী/ শিক্ষক বাদাঘাট বাজারকে ঘিরে জনবহুল চারটি সড়কে প্রতিনিয়ত যাতায়াত করেন।

শিক্ষার্থীরা ক্ষোভের সাথে জানান, প্রায় এক যুগেরও বেশী সময় ধরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগামী উপজেলার পাঠানপাড়া দিঘিরপাড় বাদাঘাট বাজার হয়ে বাদাঘাট হাসপাতাল সড়ক অর্ধশতাধিক স্থানে ভাঙাচোড়া বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়ে সড়ক জুড়েই লেগে আছে সারা বছর কাঁদামাটি, জলবদ্ধতা ও বিদ্যালয়ের প্রবেশ মুখেই পড়ে রয়েছে বাজারের ময়লা আবর্জনার বড় বড় স্তুপ।

একই ভাবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগামী বাদাঘাট বাজারের চাউলপট্রি হয়ে হাসপাতাল সড়ক, বাঘাঘাট বাজারের জগদীশ বাবুর মোড় থেকে কাঠপট্রি, গরু বাজার, সবজি মহাল মসজিদ এর পেছন হয়ে আসা সড়কটি, বাদাঘাট বাজারের বাদামপট্রি হয়ে বাদাঘাট পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজগামী সড়ক, কামড়াবন্দ মোড় হয়ে বাদাঘাট পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয়গামী খেলার মাঠ লাগোয়া সড়ক, বাদাঘাট বাজারের কলেজ রোডের স্কুলমার্কেট থেকে বিদ্যালয়ের প্রধান প্রবেশের সড়ক, বাদাঘাট দিঘিরপাড় সড়কের পাশে জয়নাল আবেদীন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়গামী কামড়াবন্দ-সোহালা সংযোগ সড়কটি ভাঙা চোড়া, কাঁদামাটি, বড় বড় গর্ত তৈরী হয়ে জলাবদ্ধতায় নিমজ্জিত থাকে।

যে কারনে এসব সড়কের উপর দিয়ে রিক্সা, অটোরিক্সা, মোটরসাইকেল, বাইসাইকেল সহ অন্যান্য যান বাহন চলাচল তো দুরের কথা সামান্য বৃষ্টি হলে খালি পায়ে হেঁটেও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে যাতায়াত করাটা অনকেটা দুর্ভোগে পরিণত হয়।

উপজেলার বাদাঘাট পাবলিক উচ্চ বিদ্যালযের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী কবির হোসেন ও মুরশিদা বেগম বলেন, আমাদের দাবি সুনামগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য, জেলা ও উপজেলা প্রকৌশল অফিসের দায়িত্বশীলরা এমনকি প্রশাসনের দায়িত্বশীলারাও সরজমিনে এসে সড়কগুলোর বেহাল বাস্তব চিত্র ও জনদুর্ভোগের বিষয়টি দেখে শীঘ্রই সড়কগুলোর আশেপাশ থেকে ফুটপাতের দোকানপাঠ, ময়লার স্থুপ সড়ানো, জলবদ্ধতা দুরীকরণ, সড়কগুলো নতুন করে মেরামত, সংস্থার এবং নতুন করে সড়কগুলো প্রশস্থ করণ সহ জনদুর্ভোগ লাঘবে যাবতীয় প্রকল্প গ্রহন ও প্রকল্প বাস্তবায়ন করবেন।

বুধবার উপজেলার বাদাঘাট পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শফিকুর ইসলাম দানু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও জনচলাচলগামী সড়কগুলোর নাজুক অবস্থার কথা তুলে ধরে জানান, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্ধ, উপজেলা প্রকৌশল অধিদপ্তরের দায়িত্বশীলদের ও প্রশাসনের বিভিন্ন দফতরে বছরের পর বছর ধরে এসব সড়কের দুর্ভোগের চিত্র তুলে ধরে সংস্কারের দাবি জানালেও কার্যত দিন দিন সড়কগুলো জনচলাচলের জন্য সম্পুর্ণ ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে পড়লেও তারা সড়কগুলো সংস্থার মেরামত কিংবা পুন:নির্মাণের কোন রকম উদ্যোগ গ্রহন করেননি।

বুধবার তাহিরপুর এলজিইডির উপজেলা প্রকৌশলী মো. সাইদুল্লাহ মিয়াকে বাদাঘাটের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগামী সড়কগুলোর বেহাল অবস্থার কথা জানিয়ে বক্তব্য জানতে চাইলে তিনি বলেন, এসব সড়ক মেরামত, সংস্কার বা পুন:নির্মাণের কোন রকম প্রকল্পই আমরা গ্রহন করিনি।

0Shares





Related News

Comments are Closed