Main Menu

নওগাঁয় জিংক সমৃদ্ধ ধান প্রোমোশনে কৃষি কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ

আব্দুল খালেক : হারভেষ্টপ্লাস বাংলাদেশ এর আর্থিক ও কারিগরি সহায়তায় পরিচালিত ও উত্তর জনপদ বগুড়ায় অবস্থিত দেশের শীর্ষ পর্যায়ের এনজিও গ্রাম উন্নয়ন কর্ম (গাক) কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন প্রকল্প “Market promotion of Bio-fortified zinc rice in Bangladesh” এর আওতায় ২০ সেপ্টেম্বর নওঁগা জেলার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক এর সম্মেলন কক্ষে দিনব্যাপী জিংক সমৃদ্ধ ধান প্রোমোশনে উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে নওগাঁ জেলার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ আবু হোসেন প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থেকে গুরুত্বপূর্ণ ও দিক নির্দেশনা মূলক বক্তব্য দেন।

বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ধান গবেষনা ইন্সটিটিউট রাজশাহী অঞ্চলের প্রধান গবেষক ড. মোঃ ফজলুল ইসলাম, অতিরিক্ত উপ-পরিচালক (শষ্য) মোঃ শামিম ইকবাল, নওগাঁ সদর উপজেলার স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ আবুল কালাম আজাদ ও হারভেষ্টপ্লাস বাংলাদেশ এর রাজশাহী ডিভিশনাল কো-অর্ডিনেটর কৃষিবিদ মোঃ জাকিউল হাসান প্রমুখ।

গাক’র সমন্বয়কারী (কমিউনিকেশন এন্ড ডকুমেন্টেশন) সরদার জিয়া উদ্দিনের সার্বিক সঞ্চালনায় জিংক সমৃদ্ধ ধান প্রোমোশনে প্রশিক্ষক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠানে কৃষিবিদ মোঃ জাকিউল হাসান, হারভেষ্ট বাংলাদেশ এর কার্যক্রম প্রকল্পের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য তুলে ধরেন।

প্রধান অতিথি আবু হোসেন জিংক সমৃদ্ধ ধান চাষের সম্ভাবনা ও গুরুত্ব তুলে ধরেন।

প্রধান ধান গবেষক ড. মোঃ ফজলুল ইসলাম জিংক সমৃদ্ধ ধানের বিভিন্ন জাত, কারিগরি বিষয় ও উৎপাদন কৌশল ব্যাখ্যা করেন।

স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ আবুল কালাম আজাদ জিংক চালের পুষ্টিগুন বিষয়ে বিশেষ করে গর্ভবতী মা ও শিশুদের জন্য জিংকের ঘাটতি ও প্রয়োজনীয় মাত্রা নিয়ে বিস্তরারিত আলোচনা উপস্থাপন করেন।

প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠানে নওগাঁ জেলার রানীনগর ও নওগাঁ সদর উপজেলার ২৫ জন উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা উক্ত প্রশিক্ষক প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। এ সময় কৃষি অফিসের কর্মকর্তা, এনজিও কর্মী, গাক কর্মকর্তা, ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

0Shares





Related News

Comments are Closed