Main Menu
শিরোনাম
সিলেটের যেসব স্থানে মঙ্গলবার ব্যাংক বন্ধ থাকবে         কমলগঞ্জে ৫ দফা দাবিতে ফারিয়ার মানববন্ধন         আজিজ আহমদ সেলিমের মৃত্যুতে বিশ্বনাথ প্রেসক্লাবের শোক         হত্যা ও ধর্ষণের প্রতিবাদে বিশ্বনাথে মানববন্ধন         ওসমানী মেডিকেলে নতুন পরিচালক নিয়োগ         শাবির ল্যাবে আরো ১৬ জনের করোনা শনাক্ত         শায়েস্তাগঞ্জে বাস-মাইক্রোবাস সংঘর্ষে নিহত ১         আকবরকে ধরিয়ে দিলে ১০ লক্ষ টাকা পুরস্কার!         ছাতকে গৃহবধূ ধর্ষিত, ধর্ষক গ্রেফতার         সিলেটের দুই ল্যাবে ২৭ জনের করোনা শনাক্ত         তাহিরপুরের লাল শাপলা রক্ষায় প্রশাসনের মাইকিং         মনুনদীতে গোসল করতে নেমে যুবকের মৃত্যু        

গ্রেপ্তার এড়াতে দাড়ি কেটে ফেলেছে ধর্ষক সাইফুর!

বৈশাখী নিউজ ডেস্ক: সিলেট এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে স্বামীকে বেধে রেখে তরুণীকে ধর্ষণ ও অস্ত্র মামলার প্রধান আসামী সাইফুর রহমান আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাত থেকে গ্রেফতার এড়াতে মুখের দাড়িও কেটে ফেলেছে। তবুও তার রক্ষা হয়নি। রবিবার (২৭ সেপ্টেম্বর) ভোরে সুনামগঞ্জ জেলার ছাতক থানাধীন সীমান্তবর্তী এলাকা খেয়াঘাট থেকে গোপন তথ্যের ভিত্তিতে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত সাইফুর রহমান লাগঞ্জ উপজেলার চান্দাইপাড়া গ্রামের তাহিদ মিয়ার ছেলে।

এদিকে, সাইফুর রহমানকে পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা জিজ্ঞাসাবাদ শেষে মহানগর পুলিশের শাহপরাণ থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েেছে।

তদন্ত সংশ্লিষ্ট পুলিশের এক কর্মকর্তা জানান, সাইফুর গ্রেফতার এড়াতে তার মুখের দাঁড়ি কেটে ফেলে। সে সীমান্ত পথ ব্যবহার করে ভারতে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। গ্রেফতারের পর সাইফুর পুলিশের কাছে ঘটনার বিস্তারিত বর্ণনা দেয়।

এমসি কলেজের একাধিক শিক্ষার্থী জানান, সাইফুর এমসি কলেজের ইংরেজী বিভাগ থেকে মাস্টার্স পরীক্ষা দিয়েছে। তার ইভটিজিং ও হয়রানির কারণে এমসি কলেজ থেকে অনেক মেয়েরা অন্য কলেজে চলে যায়। এমনকি কলেজে সাইফুরসহ তার সহযোগীরা সাধারণ শিক্ষার্থীকে জিম্মী করে চাঁদাবাজিও করে আসছে।

প্রসঙ্গত, গত শুক্রবার (২৫ সেপ্টেম্বর) বিকেলে এমসি কলেজে বেড়াতে গিয়েছিলেন সিলেটের দক্ষিণ সুরমার এক দম্পত্তি। ছাত্রলীগের ৫/৬ জন নেতাকর্মী তাদেরকে ধরে ছাত্রাবাসে নিয়ে আসে। সেখানে দুজনকেই মারধর করে তারা। পরে স্বামীকে বেঁধে রেখে তার সামনেই স্ত্রীকে গণধর্ষণ করা হয়। খবর পেয়ে রাত সাড়ে ১০টার দিকে ওই দম্পত্তিকে ছাত্রাবাস থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। পরবর্তীতে ধর্ষণের শিকার তরুণীকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসি সেন্টারে ভর্তি করা হয়।

এ ঘটনায় শনিবার ভোর রাতে ৬ জনের নামোল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ২/৩ জনকে অভিযুক্ত করে নগরের শাহপরান থানায় এ মামলা (২১(৯)২০২০) দায়ের করেন ধর্ষিতার স্বামী। এজাহার নামীয় আসামিরা হলো- সিলেটের বালাগঞ্জ উপজেলার চান্দাইপাড়া গ্রামের তাহিদ মিয়ার ছেলে এমসি কলেজের ৫ম ব্লক হোস্টেলের বাসিন্দা সাইফুর রহমান (২৮), সুনামগঞ্জ সদরের নিসর্গ-৫৭ বাসার মৃত রফিকুল ইসলামের ছেলে মেজরটিলা দিপীকা আবাসিক এলাকার বাসিন্দা তারেকুল ইসলাম তারেক (২৮), হবিগঞ্জ সদরের বাগুনীপাড়ার শাহ মো. জাহাঙ্গীর মিয়ার ছেলে এমসি কলেজ হোস্টেল, ৭নং ব্লকের ২০৫ নং কক্ষের বাসিন্দা শাহ মো. মাহবুবুর রহমান রনি (২৫), সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলার আটগ্রামের কানু লস্করের ছেলে বর্তমানে শাহপরান রাজপাড়া এলাকার বাসিন্দা অর্জুন লস্কর (২৫), সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার বড়নগদীপুর গ্রামের বাসিন্দা বর্তমানে এমসি ছাত্রাবাসে বসবাস রবিউল ইসলাম (২৫), সিলেটের কানাইঘাট উপজেলার গাছবাড়ি এলাকার মাহফুজুর রহমান মাসুম (২৫)। এরমধ্যে সাইফুর রহমান ও অর্জুন লস্করকে রোববার সকালে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

এছাড়া অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় পৃথক আরেকটি মামলা দায়ের করেন শাহপরান (র.) থানা পুলিশের উপ পরিদর্শক (এসআই) মিল্টন সরকার। ছাত্রলীগ ক্যাডার সাইফুর রহমানকে আসামি করে মামলা (নং-২২(৯)২০২০) দায়ের করেন তিনি।

0Shares





Related News

Comments are Closed