Main Menu
শিরোনাম
এসএসসি ২০০২ ব্যাচের শীতবস্ত্র বিতরণ         জৈন্তাপুরে ৪৪৫ পিস ইয়াবাসহ ১জন গ্রেপ্তার         সিলেটে আরও ১৫ জনের করোনা শনাক্ত         বাগলী স্থল শুল্ক ষ্টেশনে মানববন্ধন অনুষ্টিত         জুড়ীতে আগুনে পুড়ল ৬টি দোকান         সিলেটে করোনায় আরও এক মৃত্যু, শনাক্ত ১০         বিশ্বনাথে ঐতিহ্যবাহী ‘পলো বাওয়া’ উৎসব পালিত         জৈন্তাপুরে এসএসসি-২০০২ ব্যাচের শীতবস্ত্র বিতরণ         কুলাউড়া পৌরসভায় আ.লীগ প্রার্থী সিপারের জয়         জগন্নাথপুরে বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী আক্তার জয়ী         কমলগঞ্জে দ্বিতীয় মেয়াদে মেয়র হলেন জুয়েল আহমদ         সুনামগঞ্জে দ্বিতীয় মেয়াদে মেয়র হলেন নাদের বখত        

আরও বাড়বে স্বর্ণের দাম, রূপার মূল্য দ্বিগুণ

বৈশাখী নিউজ ডেস্ক : আন্তর্জাতিক বাজারে লাগামহীনভাবে বেড়েই চলেছে স্বর্ণের দাম। আজ সোমবার (২৭ জুলাই) প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম ১৯৩১  মার্কিন ডলার। বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, প্রতি আউন্স স্বর্ণের মূল্য এ বছরের শেষের দিকে দুই হাজার ছাড়িয়ে যাবে।

বর্তমানে প্রতি আউন্স রূপার মূল্য ২৩.২৭ মার্কিন ডলার। চলতি বছরের মার্চের তুলনায় বর্তমানে মূল্য দ্বিগুণ হয়ে গেছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, স্বর্ণের দামের পাশাপাশি রূপার দাম আরও বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

এএসজেড ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ডেনিয়েল হাইনেস বলেন, করোনাভাইরাস মহামারী আকারে ছড়িয়ে যাওয়ার পর ইউরোপীয় ইউনিয়নের নয়া পদক্ষেপের কারণে স্বর্ণের দাম বেড়ে যাচ্ছে। মহামারী পরিস্থিতি বেড়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে স্বর্ণের দামও বাড়ছে। তিনি মনে করেন, এ বছরের শেষের দিকে স্বর্ণের দাম আরও বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

তবে করোনা মহামারী থেমে গেলে বাজার পরিস্থিতি আবারও স্থিতিশীল হবে বলে আশাবাদী ডেনিয়েল হাইনেস।

এর আগে, কখনও এক আউন্স স্বর্ণের দাম এক হাজার ৯৩১ ডলার স্পর্শ করেনি। ২০১১ সালের সেপ্টেম্বরে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম এক হাজার ৯২০ ডলারে উঠেছিল। এটাই এতদিন বিশ্ববাজারে স্বর্ণের সর্বোচ্চ দাম ছিল।

তবে স্বর্ণের দাম এভাবে বেড়ে যাওয়ার ফলে মুদ্রাস্ফীতি দেখা দিতে পারে কিনা, সে ব্যাপারেও উদ্বিগ্ন বিশেষজ্ঞরা।

এদিকে, বিশ্ববাজারে স্বর্ণের এমন দাম বাড়ার প্রেক্ষিতে গত সপ্তাহে বাংলাদেশেও দাম বাড়ানোর ঘোষণা দেয় স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের সংগঠন বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস)। গত ২৪ জুলাই শুক্রবার থেকে স্বর্ণের বাড়তি দাম কার্যকর হয়েছে।

নতুন দাম অনুযায়ী, সবচেয়ে ভালো মানের বা ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি (১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম) স্বর্ণের দাম ২ হাজার ৯১৬ টাকা বাড়িয়ে ৭২ হাজার ৭৮৩ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ৬৯ হাজার ৬৩৪ টাকা এবং ১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ৬০ হাজার ৮৮৬ টাকা। সনাতন পদ্ধতিতে স্বর্ণের দাম ৫০ হাজার ৫৬৩ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। দেশের ইতিহাসে স্বর্ণের দাম আগে কখনও এত ছিল না।

এদিকে বাজুস যখন দেশের বাজারে স্বর্ণের দাম বাড়ানোর ঘোষণা দেয় তখন বিশ্ববাজারে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম ছিল এক হাজার ৮৮৯ ডলার। অর্থাৎ বাজুসের দাম বাড়ানোর ঘোষণা আসার পর ইতোমধ্যে বিশ্ববাজারে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম ৩৪ ডলার বেড়ে গেছে।

বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দাম বাড়ার বিষয়ে সম্প্রতি ভেনাস জুয়েলার্সের কর্ণধার ও স্বর্ণ শিল্পী সমিতির সভাপতি গঙ্গা চরণ মালাকার বলেন, ‘২০১১ সাল ছাড়া স্বর্ণের এমন দাম বাড়ার প্রবণতা কখনও দেখা যায়নি। শেয়ারবাজারে মন্দার কারণে আন্তর্জাতিক গেম্বলাররা (জুয়াড়ি) স্বর্ণ কিনে মজুত করছেন। এ কারণে স্বর্ণের এমন দাম বাড়ছে।’

তিনি বলেন, ‘স্বর্ণের দাম বাড়লেও আমাদের বিক্রি নেই। আমাদের দেশে স্বর্ণালংকার বেশি ব্যবহার করেন মধ্যবিত্তরা। করোনার কারণে এই মধ্যবিত্ত এখন বড় সমস্যায় পড়েছেন। তাছাড়া বয়স্করা এখন ঘর থেকে বের হচ্ছে না। সবমিলিয়ে আমাদের বিক্রি শূন্যের কোঠায় নেমেছে।’

0Shares





Comments are Closed