Main Menu
শিরোনাম
সিলেটে দুই ল্যাবে আরো ৮৫ জনের করোনা শনাক্ত         সুনামগঞ্জে করোনায় আক্রান্ত ব্যবসায়ীর মৃত্যু         শাবির ল্যাবে আরও ৪৬ জনের করোনা শনাক্ত         নবীগঞ্জে দুলাভাই-শ্যালিকার পরকীয়ার বলী হলেন মা         শায়েস্তাগঞ্জে মোটরসাইকেল দূর্ঘটনায় নিহত ১         জাফলংয়ে আসা পর্যটকদের ফিরিয়ে দিচ্ছে প্রশাসন         বিশ্বনাথে দুই ছেলের হামলায় পিতা আহত         ধর্মপাশায় নৌকা ডুবে মা-ছেলেসহ ৩জনের মৃত্যু         ছাতকে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মাদ্রাসা ছাত্রের মৃত্যু         দলই চা বাগান খুলে দেয়ার দাবিতে মানববন্ধন         পল্লী বিদ্যুতের লোডশেডিং ও ভুতুড়ে বিল বন্ধের দাবি         গোয়াইনঘাটে প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত ১, আটক ৭        

সহসাই তৈরি হচ্ছে না ভারতের ভ্যাকসিন!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : করোনার এই দুর্যোগে ভারতবাসীকে হতাশ করলো ভারত বায়োটেক। কেননা চলতি বছরে করোনার প্রতিষেধক বাজারে আসার কোনও সম্ভাবনাই নেই বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছে সংস্থাটি। তারা বলছে, প্রাণঘাতী করোনার প্রভ্যাসিন তৈরি করতে ২০২১ সাল পর্যন্ত সময় লাগবে। খবর নিউজ এইটটিনের।

করোনাভাইরাসের গ্রাসে ভয়ংকর অবস্থা গোটা বিশ্বে। প্রতিদিন বাড়ছে আক্রান্ত সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃত্যুর হার। এই পরিস্থিতিতে করোনার প্রতিষেধক নিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষা চালাচ্ছেন গবেষকরা। এই মুহূর্তে ১০টিরও বেশি প্রতিষেধকের মানবদেহে ট্রায়াল চলছে। এরই মধ্যে ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব মেডিকেল রিসার্চ বা আইসিএমআর জানিয়েছে,আগামী ১৫ অগাস্ট স্বাধীনতা দিবসেই ভারতের বিজ্ঞানীদের তৈরি করোনার প্রতিষেধকটি সব জায়গায় পাওয়া যাবে।

তবে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় বলছে, ২০২১ সালের আগে করোনার প্রতিষেধক বাজারে আসার কোনও সম্ভাবনা নেই। করোনার প্রতিষেধক হাতে পেতে ২০২১ সাল পর্যন্ত অপেক্ষা করতেই হবে। এদিকে বায়োটেকের তৈরি কোভ্যাক্সিন ও আহমেদাবাদের জাইডাস ক্যাডিলার তৈরি জাইকভ-ডি এই দু’টি করোনা প্রতিষেধক ডিসিজিআই-এর থেকে হিউম্যান ট্রায়ালের অনুমতি পেয়েছে।

সবশেষে ইন্ডিয়ান একাডেমি অব সায়েন্স জানিয়েছে, করোনার প্রতিষেধক বাজারে আনার ক্ষেত্রে তড়িগড়ি করা উচিত হবে না। এতে করে মানব দেহে বিরুপ প্রতিক্রিয়ারও আশঙ্কা রয়েছে। মোট দু দফায় চলবে এই পরীক্ষা। হায়দরাবাদের ওষুধ প্রস্তুকারক সংস্থা ভারত বায়োটেককে এই কাজে যৌথভাবে সহায়তা করেছে আইসিএমআর।

0Shares





Related News

Comments are Closed