Main Menu

দেশে ১০ লাখ মানুষের বিপরীতে দশজন বিচারক

বৈশাখী নিউজ ডেস্ক: দেশে ১০ লাখ মানুষের বিপরীতে দশ জন বিচারক রয়েছেন উল্লেখ করে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বলেছেন, যেখানে যুক্তরাষ্ট্রে ১০৭, কানাডায় ৭৫, ইংল্যান্ডে ৫১, অস্ট্রেলিয়ায় ৪১ ও ভারতে ১৮ জন রয়েছেন।

সুপ্রিম কোর্টের জুডিশিয়াল রিফর্ম কমিটি ও জার্মান ডেভেলপমেন্ট কো-অপারেশন (জিআইজেড) যৌথভাবে ‘ন্যাশনাল জাস্টিস অডিটের ফলাফল উপস্থাপন’ বিষয়ক গত ২৭ এপ্রিল শনিবার এক আলোচনা সভার আয়োজন করে। ওই আলোচনা সভায় বিভিন্ন দেশের জনসংখ্যার সঙ্গে বিচারকদের আনুপাতিক সংখ্যার চিত্র তুলে ধরেন তিনি।

তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা ও অস্ট্রেলিয়ার মতো উন্নত দেশে ৮৫ থেকে ৯০ শতাংশ মামলা বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি পদ্ধতির মাধ্যমে নিষ্পত্তি হয়, কেবল ১০ থেকে ১৫ শতাংশ মামলা বিচারের জন্য যায়।

অন্যদিকে বাংলাদেশে ১০ থেকে ১৫ শতাংশ মামলা বিচার পূর্ব সময়ে নিষ্পত্তি হয় এবং ৮৫ থেকে ৯০ শতাংশ মামলা বিচারের জন্য যায়, যা বড় ধরনের মামলা জট তৈরি করে। মামলা নিষ্পত্তি বাড়াতে মামলা ব্যবস্থাপনা ও আদালত প্রশাসনের ভূমিকা অপরিহার্য।

মামলা জট নিরসন বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিদের নিয়ে ২ মে বৃহস্পতিবার বৈঠকে বসবেন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন। ওই দিন বিকেল তিনটায় সুপ্রিম কোর্টের জাজেস লাউঞ্জে ওই বৈঠক হবে। সুপ্রিম কোর্টের একটি সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

সুপ্রিম কোর্ট মিলনায়তনে ২৭ এপ্রিল শনিবার এক আলোচনা সভায় মামলা জট নিরসন বিষয়ে আগামী এক মাসের মধ্যে বিচারপতিদের নিয়ে বসার কথা জানিয়ে ছিলেন প্রধান বিচারপতি। ওই দিন তিনি বলেছিলেন, দেশের সব আদালতে মামলার আধিক্যের জন্য জনসংখ্যা বৃদ্ধি প্রাথমিকভাবে দায়ী। প্রধান বিচারপতি বলেন, বিচারাধীন মামলার তুলনায় বিচারক সংখ্যা অপ্রতুল। তাই দিন দিন মামলাজট দ্রুত বাড়ছে।

0Shares





Related News

Comments are Closed