Main Menu

পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান গুলিবিদ্ধ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিরোধী দল তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) প্রধান ইমরান খান গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। তার এক পায়ে গুলি লেগেছে। এ ঘটনায় আরও কয়েকজন আহত হয়েছেন।পাঞ্জাবের ওয়াজিরাবাদে এ ঘটনা ঘটে।

বৃহস্পতিবার (৩ নভেম্বর) রাজধানী ইসলামাবাদ অভিমুখে লংমার্চকালে তাকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় দুর্বৃত্তরা। গুরুতর অবস্থায় তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আগাম নির্বাচনের দাবিতে ‘হাকিকি আজাদি’ আন্দোলন শুরু করেছে ইমরান খানের দল পিটিআই। গত ২৮ অক্টোবর থেকে লাহোর থেকে রাজধানী ইসলামাবাদের উদ্দেশে লংমার্চ শুরু হয়। লাখো সমর্থক নিয়ে শুরু হওয়া লংমার্চের নেতৃত্ব দিচ্ছেন ‘কাপ্তান’ ইমরান খান।

স্কাই নিউজ জানায়, বৃহস্পতিবার (৩ নভেম্বর) পাঞ্জাবের ওয়াজিরাবাদ শহরে ট্রাকের ওপর দাঁড়িয়ে শত শত কর্মী-সমর্থকের উদ্দেশে বক্তব্য দিচ্ছিলেন ইমরান খান। এ সময় তাকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় এক বন্দুকধারী। তিনি গুরুতর আহত হন। আহত হয়েছেন পিটিআই’র একাধিক সমর্থকও।

পিটিআই মুখপাত্র ফাওয়াদ চৌধুরী বলেন, বৃহস্পতিবার ওয়াজিরাবাদে নির্বাচনের দাবিতে সমাবেশ করছিলেন তিনি। সেখানে তাকে লক্ষ্য করে তিন থেকে চারটি গুলি করেছেন অজ্ঞাত এক বন্দুকধারী।এতে তিনি গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। তার পায়ে গুলি লেগেছে। তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

পাকিস্তানের একটি টেলিভিশনে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি আরও বলেন, হামলায় সিনেটর ফয়সাল জাভেদ ও আহমেদ চট্টাসহ তিনজন আহত হয়েছেন।

ইসমাইল নামে পিটিআইয়ের আরেক নেতা জানান, ইমরান খানের ডান পায়ে তিন থেকে চারবার গুলি করা হয়েছে।তিনি বলেন, ঘটনার সময় তিনি ইমরান খানের একেবারে পাশে ছিলেন। হামলাকারী একেবারে কনটেনারের সামনে থেকে সরাসরি গুলি ছুড়েছে। একে-৪৭ থেকে গুলি ছোড়া হয়েছে বলে দাবি করেছেন তিনি। এতে পিটিআইয়ের নেতা ফয়সাল জাভেদও আহত হয়েছেন।

এদিকে ঘটনার সময় আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর গুলিতে এক হামলাকারী নিহত হন। অপর হামলাকারীকে গ্রেপ্তার করেছে পাকিস্তানের নিরাপত্তা বাহিনী।

গ্রেপ্তারের পর পাকিস্তান পুলিশের কাছে দেওয়া এক ভিডিও বিবৃতিতে হামলাকারী বলেছেন, তাকে লোকজন ভুল বুঝিয়েছিল। যে কারণে তিনি ইমরান খানকে হত্যার চেষ্টা করেছেন।

পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হওয়া সন্দেহভাজন ওই হামলাকারীর পরিচয় এখন পর্যন্ত দেশটির গণমাধ্যমে প্রকাশ করা হয়নি। তবে ভিডিওতে হামলাকারী বলেন, লোকজন ভুল বোঝানোর কারণে তিনি পিটিআই চেয়ারম্যানকে হত্যা করতে চেয়েছেন।

‘তাকে লোকজন ভুল বুঝিয়েছে। আমি তাকে সহ্য করতে পারছিলাম না। যে কারণে তাকে হত্যা করতে চেয়েছিলাম। তাকে হত্যার চেষ্টা করেছি।’

‘আমি ইমরান খানকে হত্যার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা চালিয়েছি। আমি কেবল ইমরান খানকে হত্যা করতে চেয়েছিলাম। এছাড়া আমার আর কাউকে হত্যার উদ্দেশ্য ছিল না।’

হামলাকারী এই যুবক বলেন, ইমরান খান লাহোর ছেড়ে যাওয়ার পর থেকে হত্যার পরিকল্পনা করছিলেন তিনি। তবে এই হামলায় তার কোনও সহযোগী আছে কিনা জানতে চাইলে মাথা নাড়িয়ে নেতিবাচক জবাব দেন হামলাকারী। বলেন, ‘আমার সাথে আর কেউ ছিল না। আমি একাই ছিলাম।’

এদিকে, আল্লাহ ওয়াল্লা চকে বন্দুকধারীর ছোড়া অন্তত তিন থেকে চারটি গুলি ইমরান খানের পায়ে বিদ্ধ হয়েছে বলে তার জ্যেষ্ঠ এক সহযোগী জানিয়েছেন। তিনি বলেন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী পায়ের পাতায় গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। তবে বর্তমানে তিনি শঙ্কামুক্ত রয়েছেন।

ইমরান খানের সহযোগী রউফ হাসান বলেন, ইমরান খানকে গুলি করা এক হামলাকারী নিহত হয়েছেন। অন্য একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তিনি বলেন, এটা ছিল পুরোপুরি হত্যাচেষ্টা। তাকে গুপ্তহত্যার চেষ্টা করেছে। এক হামলাকারী গুলিতে নিহত হয়েছেন। অপরজনকে জিম্মায় নিয়েছে পুলিশ।

পাকিস্তানের রাজধানী ইসলামাবাদ থেকে ২০০ কিলোমিটার দূরে পাঞ্জাব প্রদেশের ওয়াজিরাবাদে এই হামলার ঘটনা ঘটেছে। সাবেক ক্রিকেট তারকা থেকে রাজনীতিক বনে যাওয়া ৭০ বছর বয়সী ইমরান খান দেশটিতে আগাম নির্বাচনের দাবিতে লংমার্চ পালন করে আসছেন।

বৃহস্পতিবার ওয়াজিরাবাদের লংমার্চে হাজার হাজার পিটিআই কর্মী-সমর্থক উপস্থিত ছিলেন। পিটিআইয়ের মুখপাত্র ফাওয়াদ চৌধুরী বলেছেন, একটি গুলি ইমরান খানের পায়ের পাতায় লেগেছে।

রয়টার্সকে তিনি বলেন, ইমরান খান এবং (দলীয় সহকর্মী) ফয়সাল জাভেদ গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। একটি গুলি ইমরান খানের পায়ের পাতায় লেগেছে। দু’জনকেই চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

জিও টিভির এক ভিডিওতে দেখা যায়, পিটিআইয়ের কর্মী জাভেদের কাপড়ে রক্তের দাগ লেগে আছে। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন পিটিআইয়ের এই কর্মী বলেন, আমাদের কয়েকজন সহকর্মীও আহত হয়েছেন। আমরা শুনেছি, আহতদের একজন মারা গেছেন।

চলতি বছরের এপ্রিলে পাকিস্তানের সংসদে অনাস্থা ভোটে হেরে প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে ক্ষমতাচ্যুত ইমরান খান। ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার পর থেকে পাকিস্তানজুড়ে সমাবেশ করেছেন তিনি।

এদিকে ইমরান খান হত্যাচেষ্টার ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ। সেই সঙ্গে ঘটনাটি তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। বিরোধীরা গত প্রায় আট মাস ধরে আগাম নির্বাচনের দাবি জানিয়ে আসছে। শাহবাজ শরিফের সরকার বলছে, কোনো আগাম নির্বাচন নয়। নির্বাচন আগামী ২০২৩ সালের নির্ধারিত সময়েই হবে।

0Shares





Related News

Comments are Closed