Main Menu

আন্তর্জাতিক গণতন্ত্র দিবস আজ

বৈশাখী নিউজ ডেস্ক: আন্তর্জাতিক গণতন্ত্র দিবস আজ। জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে ২০০৭ সালে সদস্যভুক্ত দেশগুলোতে গণতন্ত্র সম্পর্কে আগ্রহ সৃষ্টি এবং গণতন্ত্র চর্চাকে উৎসাহিত করার জন্য প্রচলিত একটি বিশেষ দিন পালনের সিদ্ধান্ত হয়। এর পর থেকেই প্রতি বছর ১৫ সেপ্টেম্বর দিবসটি পালিত হয়ে আসছে।

এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য- গণতন্ত্র, শান্তি এবং টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য অর্জনে গণমাধ্যমের স্বাধীনতার গুরুত্ব।

গণতন্ত্র হল এমন একটি ধারণা যা আমাদেরকে একটি মুক্ত, ন্যায্য এবং আদর্শ সমাজ গঠন করতে দেয় যেখানে একটি নিরাপদ এবং সুখী স্থান গঠন করে প্রত্যেকে সমান হিসাবে বিবেচিত হতে এবং একে অপরের সাথে একত্রিত হয়ে বসবাস করতে চায়। বিশ্বের বেশিরভাগ দেশের একটি অনুশীলন, গণতন্ত্রের ধারণা এবং এর প্রকৃত মূল্য সাম্প্রতিক সময়ে বিকশিত এবং পরিবর্তিত হচ্ছে। বিশ্বে রাজনৈতিক অস্থিরতা বাড়ার সাথে সাথে একটি গণতান্ত্রিক সমাজের গুরুত্ব বোঝা যায় এবং এ কারণেই আন্তর্জাতিক গণতন্ত্র দিবস পালন করা হয়।

জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস আন্তর্জাতিক গণতন্ত্র দিবসের বার্তায় বলেন, এবার আন্তর্জাতিক গণতন্ত্র দিবসের ১৫তম বার্ষিকী চলছে। তবুও সারা বিশ্বে গণতন্ত্র পিছিয়ে যাচ্ছে। নাগরিক অধিকার সংকুচিত হচ্ছে। অবিশ্বাস ও অপতৎপরতা বাড়ছে। আর মেরুকরণ গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানকে ক্ষুন্ন করছে।

জাতিসংঘের মহাসচিব বলেন, গণতন্ত্র, উন্নয়ন এবং মানবাধিকার যে পরস্পর নির্ভরশীল এবং পারস্পরিকভাবে শক্তিশালীকরণের এখনই সময়। এখনই সময় সাম্য, অন্তর্ভুক্তি এবং সংহতির গণতান্ত্রিক নীতির পক্ষে দাঁড়ানোর।

তিনি বলেন, যারা আইনের শাসন সুরক্ষিত করার চেষ্টা করে এবং সিদ্ধান্ত গ্রহণে পূর্ণ অংশগ্রহণের প্রচার করে তাদের পাশে দাঁড়ান।

তিনি বলেন, সাংবাদিকদের নীরব করার প্রচেষ্টা দিন দিন আরও নির্লজ্জভাবে বাড়ছে। বিশেষ করে নারী সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মৌখিক হামলা থেকে শুরু করে অনলাইন নজরদারি এবং আইনি হয়রানি বাড়ছে। মিডিয়া কর্মীরা প্রায়ই দায়মুক্তিসহ সেন্সরশিপ, আটক, শারীরিক সহিংসতা এবং এমনকি হত্যারও সম্মুখীন হচ্ছেন।

তিনি বলেন, স্বাধীন গণমাধ্যম ছাড়া গণতন্ত্র টিকে থাকতে পারে না। মত প্রকাশের স্বাধীনতা ছাড়া স্বাধীনতা নেই। আসুন,

গণতন্ত্র দিবসে এবং প্রতিদিন আমরা সর্বত্র স্বাধীনতা এবং সকল মানুষের অধিকার রক্ষার জন্য দলে যোগদান করি।

0Shares





Related News

Comments are Closed