Main Menu
শিরোনাম
মামলা প্রত্যাহার না হলে কঠোর কর্মসূচির ঘোষণা শিক্ষার্থীদের         ওসমানীনগরে সড়ক দুর্ঘটনায় ২ জনের মৃত্যু         শান্তিগঞ্জে মাস্ক পরিধান সম্পর্কে থানা পুলিশের প্রচারণা         সিলেট জেলা মহিলা দলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন         শান্তিগঞ্জে কার খাদে পড়ে চালক নিহত, আহত ৪         গোলাপগঞ্জ উপজেলা বিএনপির কাউন্সিল সম্পন্ন         কমলগঞ্জে ঐতিহ্যবাহী চুঙ্গা পিঠা উৎসব         কমলগঞ্জে জলাশয় থেকে নারীর লাশ উদ্ধার         নবীগঞ্জে সিএনজির ধাক্কায় বৃদ্ধের মৃত্যু         শাবির ৩০০ শিক্ষার্থীকে আসামি করে পুলিশের মামলা         সিলেটে একদিনে করোনায় দুই শতাধিক রোগী শনাক্ত         রাষ্ট্রপতির কাছে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ‘খোলা চিঠি’        

সুনামগঞ্জে সবক’টি ইউনিয়নে নৌকার ভরাডুবি

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার ৯ টি ইউনিয়নের একটিতেও জিততে পারেনি আওয়ামী লীগ। নৌকা মনোনীত প্রার্থীদের ব্যাপক ভরাডুবি হয়েছে। তবে নৌকা ও আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থীদের প্রাপ্ত ভোটের ফলাফল বিশ্লেষণ করলে দলীয়ভাবে আওয়ামীলীগের ভোট বেড়েছে বলেই দাবী করছেন আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীরা।

বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন জাতীয় পার্টির ৩, বিএনপির ৩, আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী ২ ও জমিয়তুল উলামায়ে ইসলামের ১ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী।

রোববার (২৮ নভেম্বর) সকাল ৮ থেকে বিরতিহীনভাবে একযোগে ৪টা পর্যন্ত চলে ভোট গ্রহণ।

সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার লক্ষণ শ্রী ইউনিয়নে স্বতন্ত্র (বিএনপি) প্রার্থী আব্দুল ওয়াদুদ আনারস প্রতিক নিয়ে ২ হাজার ৯ শত ৩৯ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দি জাতীয় পার্টির প্রার্থী আব্দুল মান্নান লাঙ্গল প্রতীকে পেয়েছেন ২ হাজার ২ শত ১৪ ভোট। এ ছাড়া তরুণ স্বতন্ত্র প্রার্থী মোশাহিদ আলম মহিম তালুকদার পেয়েছেন ২ হাজার ২২ ভোট।

মোল্লাপাড়া ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে স্বতন্ত্র (বিএনপি) প্রার্থী নূরুল হক মোটর সাইকেল প্রতিক নিয়ে ৩ হাজার ৪শ ২৮ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আব্দুস সালাম ঘোড়া প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৩ হাজার ১ শ ৩৩ ভোট।

জাহাঙ্গীর নগর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে জাতীয় পার্টির রশিদ আহম্মেদ লাঙ্গল প্রতিক নিয়ে ৫ হাজার ৮শত ৩১ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বদ্ধি আ.লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী আব্দুল কাদির আনারস প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৪ হাজার ৬ শত ৯৪ ভোট।

মোহনপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মো.মইন উল হক মোটর সাইকেল প্রতিক নিয়ে ৩ হাজার ১ শত ৭২ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আ.লীগ প্রার্থী শীতেশ তালুকদার মঞ্জু নৌকা প্রতীকে ৩ হাজার ৩০ ভোট পেয়ে পরাজিত হয়েছেন।

গৌরারং ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে জাতীয় পার্টির প্রার্থী শওকত আলী ৬ হাজার ৯শত ৩২ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্ব›িদ্ব স্বতন্ত্র প্রার্থী (বিএনপি) শহীদুল ইসলাম অটোরিকশা প্রতিকে ৪ হাজার ৮ শত ৬৭ ভোট পেয়েছেন।

কুরবান নগর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী (জাতীয় পার্টি সমর্থিত) আবুল বরকত মোটর সাইকেল প্রতিকে ৩ হাজার ৫২ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আওয়ামী লীগ প্রার্থী মো. শামস্ উদ্দিন নৌকা প্রতিকে ২ হাজার ৯শত ২১ ভোট পেয়েছেন।

সুরমা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আমির হোসেন রেজা ৫ হাজার ১শত ৪২ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দি জাতীয় পার্টির প্রার্থী শামসুল ইসলাম লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৪ হাজার ১শ ১০ ভোট।

রঙ্গারচর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী (বিএনপি) আব্দুল হাই মোটর সাইকেল প্রতিক নিয়ে ৪ হাজার ৬শত ৩৫ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দি জাতীয় পার্টির প্রার্থী মো.ফয়জুর রহমান লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে ৪ হাজার ২ শত ২ ভোট পেয়েছেন।

কাঠইর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে জমিয়তুল উলামায়ে ইসলামের প্রার্থী শামসুল ইসলাম খেজুর গাছ প্রতিক নিয়ে ১ হাজার ৭ শত ৯২ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দি জাতীয় পার্টির প্রার্থী ফারুক মিয়া লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে ১ হাজার ৭ শত ৩৯ ভোট পেয়েছেন।

ফলাফল নিশ্চিত করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা উত্তম কুমার রায়।

উল্লেখ্য জাতীয় পার্টি সদর উপজেলার ৯ ইউনিয়নের মধ্যে কুরবাননগর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে লাঙ্গল প্রতীকে কোন প্রার্থী মনোনয়ন না দিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী আবুল বরকতকে দলীয় সমর্থন দিয়ে নির্বাচিত করে।

0Shares





Related News

Comments are Closed