Main Menu
শিরোনাম
ডা. সিকান্দার-সবতেরা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের উদ্বোধন         বাউল কামাল পাশার ১২০তম জন্মবার্ষিকী পালিত         সিলেটে বাস-ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে ১জন নিহত         বগির জয়েন্ট খুলে হঠাৎ দুই ভাগ চলন্ত ট্রেন         বেফাঁস মন্তব্যে বহিষ্কৃত গোলাপগঞ্জ পৌরসভার মেয়র রাবেল         গোয়াইনঘাটে ২২৫ বোতল বিদেশী মদসহ গ্রেপ্তার ৩         গোলাপগঞ্জে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে পল্লী বিদ্যুৎতের লাইনম্যানের মৃত্যু         ছাতকে রুহুল আমিন ফাউন্ডেশনের ৫ম বর্ষপূর্তি পালিত         নৌপথে ভারতে প্রবেশের দায়ে পাথর বোঝাই ট্রলার জব্দ         জৈন্তাপুরে স্কুলছাত্রের উপর চোরাকারবারীদের হামলা         ডা. সিকান্দার-সবতেরা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের যাত্রা শুরু সোমবার         সিলেট সেনানিবাসে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ‘বজ্রকন্ঠ’র উদ্ধোধন        

খালেদা জিয়াকে বিদেশ নিতে আবারও আবেদন

বৈশাখী নিউজ ডেস্ক: রাজধানীর বসুন্ধরায় এভারকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে নিতে আবারও আবেদন করেছে তার পরিবার। পরিবারের পক্ষ থেকে ছোট ভাই শামীম এস্কান্দার গত বৃহস্পতিবার এই আবেদন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে জমা দেন।

সোমবার খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক এ জেড এম জাহিদ হোসেন বলেন, পরিবারের পক্ষ থেকে খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে নেওয়ার অনুমতি চেয়ে তার ছোট ভাই শামীম এস্কান্দার আবেদন করেছেন। এটি পঞ্চম আবেদন। খালেদা জিয়ার জামিন এবং বিদেশে পাঠানোর জন্য সরকারের কাছে এই আবেদন করা হয়।

এ ব্যাপারে রাতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর একান্ত সচিব দেওয়ান মাহবুবর রহমান বলেন, তারা একটি আবেদন দিয়েছিলেন। এটা আমাদের বিষয় নয়। তাই আবেদনটি আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।

সর্বশেষ গত ৬ মে শামীম এস্কান্দার খালেদা জিয়াকে বিদেশে পাঠানো অনুমতি চেয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আবেদন করেছিলেন। সেই আবেদন আইন মন্ত্রণালয় গেলে তা নাকচ হয়ে যায়।

এদিকে সোমবার সন্ধ্যায় খালেদা জিয়ার বোন সেলিমা ইসলাম এবং তার পুত্রবধূ শর্মিলা রহমান সিঁথি খালেদা জিয়াকে দেখতে হাসপাতালে যান। হাসপাতালের সিসিইউতে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে বিএনপি চেয়ারপারসনকে। চিকিৎসকদের কাছ থেকে জানা গেছে, তাকে সিসিইউতে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রেখে চিকিৎসা চলছে। সবদিক থেকে খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার তেমন কোনো উন্নতি ঘটছে না।

হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পর খালেদা জিয়ার বিভিন্ন পরীক্ষা-নীরিক্ষা করা হয়। পরে রাতেই তাকে কেবিন থেকে সিসিইউতে নেওয়া হয়। তার ডায়াবেটিস পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণের বাইরে। হিমোগ্লোবিনও অনেক কমে গেছে। হিমোগ্লোবিনের মাত্রা ঠিক রাখার জন্য ইতিমধ্যে তাকে রক্ত দেওয়া হয়েছে। এছাড়া কিডনির ক্রিয়েটিনিন বর্ডার লাইন ক্রস করেছে। শরীর খুব দুর্বল। খাওয়া-দাওয়ার রুচিও কম।

সব বিষয় দেখাশুনা করেন তার জন্য গঠিত মেডিকেল বোর্ড। সার্বক্ষণিক হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. শাহাবুদ্দিন তালুকদারের তত্ত্বাবধায়নে বিএনপি চেয়ারপারসন চিকিৎসা নিচ্ছেন। গত ১৩ নভেম্বর তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ৭৬ বছর বয়সী সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া অনেক বছর ধরে আর্থ্রাইটিস, ডায়াবেটিস, কিডনি, ফুসফুস, চোখের সমস্যাসহ নানা জটিলতায় ভুগছেন।

এর আগে অসুস্থতার জন্য টানা ২৬ দিন ওই হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে গত ৭ নভেম্বর বাসায় ফেরেন তিনি। এ সময় তার বায়োপসি পরীক্ষাও হয়। তারও আগে গত এপ্রিলে করোনায় আক্রান্ত হন খালেদা জিয়া। পরে করোনা পরবর্তী জটিলতায় গত ২৭ এপ্রিল হাসপাতালে ভর্তি হন। সে সময় এক মাসের বেশি সময় হাসপাতালের সিসিইউতে ভর্তি ছিলেন। শারীরিক অবস্থা উন্নতি হলে ১৯ জুন বাসায় ফেরেন তিনি।

দুর্নীতির মামলায় দণ্ডিত হয়ে খালেদা জিয়া ২০০৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি কারাগারে যান। করোনা মহামারির প্রেক্ষাপটে গত বছরের ২৫ মার্চ সরকার শর্ত সাপেক্ষে তাকে সাময়িক মুক্তি দেয়। বিএনপির নেতারা খালেদা জিয়ার শর্তসাপেক্ষে এ মুক্তিকে ‘গৃহবন্দিত্ব’ বলছেন। উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে নিতে পরিবারের পক্ষ থেকে বারবার আবেদন করা হলেও সরকার তা নাকচ করে দেয়। তাকে দেশে থেকেই চিকিৎসা নিতে হবে বলে শর্তও দেওয়া হয়েছে।

0Shares





Related News

Comments are Closed