Main Menu
শিরোনাম
হবিগঞ্জ সদরে ৪ ইউপিতে আ.লীগ, বাকি চারে অন্যরা         শান্তিগঞ্জে ২টিতে নৌকা, বাকি ৬টিতে অন্যরা জয়ী         সুনামগঞ্জে সবক’টি ইউনিয়নে নৌকার ভরাডুবি         সিলেটে ৯ ইউপিতে নৌকার জয়, বিদ্রোহীসহ অন্যরা ৭         সিকৃবিতে প্যারাসাইট রিসোর্স ব্যাংক উদ্বোধন         ছাতকে ক্রাশিং চুনাপাথর বিক্রি বন্ধে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ         কমলগঞ্জে বসতঘর থেকে তরুনীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার         মাধবপুরে বাসের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহির মৃত্যু         বিশ্বনাথে আমন ধানের বাম্পার ফলন, কৃষকের মুখে হাসি         সিলেটের ১৬ ইউনিয়নে ভোট গ্রহণ চলছে         জৈন্তাপুরে ফ্রি সুন্নতে খতনা ক্যাম্প অনুষ্টিত         সুখী ও সমৃদ্ধ সমাজ গঠনে কাজ করছে ক্যাপ ফাউন্ডেশন        

ছেলে হত্যা, আপস না করায় বাবাকেও পিটিয়ে হত্যা!

বৈশাখী নিউজ ডেস্ক: সুনামগঞ্জের ছাতকে জায়গাজমি ও সামাজিক সালিশ সংক্রান্ত বিরোধের জেরে ছেলেকে হত্যার ছয় বছরের মধ্যে এবার প্রতিপক্ষের হাতে খুন হলেন বাবাও। ছেলে হত্যার ঘটনায় করা মামলায় আপস না করায় বাবাকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ স্বজনদের।

জানা গেছে, উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের বাতির আলীর সঙ্গে জায়গাজমি নিয়ে একই গ্রামের সিরাজুল ইসলামের বিরোধ চলে আসছিল। গত ১১ অক্টোবর সন্ধ্যায় স্থানীয় ইছামতি বাজার থেকে বাড়ি ফেরার সময় বাতির আলীকে (৬০) সিরাজ ও তার লোকজন লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। এ সময় প্রতিপক্ষের লোকজন বাতির আলীর দুটি পা ও হাত ভেঙে দেয়। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে সিলেট ওসমানী হাসাপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার (১৪ অক্টোবর) সন্ধ্যায় মারা যান তিনি।

নিহতের বড় ছেলে কাচা মিয়া জানান, সিরাজের লোকজন ২০১৫ সালের ২১ নভেম্বর সকালে তার ছোট ভাই হেলাল উদ্দিনকে (১৫) পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। পরে সে সিলেট ওসমানী হাসাপাতালে ওই দিন সন্ধ্যায় মারা যায়।

তিনি আরও জানান, এ ঘটনায় তার বাবা বাদী হয়ে ২১ জনকে আসামি করে ছাতক থানায় হত্যা মামলা করেন। ওই মামলায় আপস না করায় বাতির আলীকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। তার মরদেহ হাসপাতালের মর্গে রয়েছে। শুক্রবার ময়নাতদন্ত ও দাফন শেষে মামলা করা হবে।

নিহতের অপর ছেলে আলাল মিয়া জানান, অভিযুক্ত সিরাজ আগে বিএনপি করলেও মামলার আসামি হওয়ার পর আওয়ামী লীগে যোগ দেন। এরপর থেকে সিরাজের লোকজন প্রতাপশালী হয়ে একের পর এক ঘটনা ঘটাচ্ছে।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত সিরাজ মাওলানা জানান, তার বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ বাতির আলীর ছেলেরা করেছেন সব মিথ্যা। এসবের সঙ্গে তার কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই।

ছাতক থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ নাজিম উদ্দিন বলেন, মারধরের পর বাতির আলী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। মরদেহ সিলেট ওসমানী হাসাপাতালের মর্গে আছে। এখন পর্যন্ত মামলা হয়নি। মামলা হলে আইনগত ব্যবস্থা নেবে পুলিশ।

0Shares





Related News

Comments are Closed