Main Menu

কলকাতায় শুরু হল আন্তর্জাতিক বইমেলা

বৈশাখী নিউজ ডেস্ক: ৪৪তম আন্তর্জাতিক কলকাতা উদ্বোধন করা হয়েছে। আর এতে অংশ নিয়েছে বাংলাদেশের ৪১টি প্রকাশনা সংস্থা।

মঙ্গলবার (২৮ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় এ বইমেলার উদ্বোধন করা হয়। কলকাতার সল্টলেকের সেন্ট্রাল পার্কে ঘণ্টা বাজিয়ে এ মেলার উদ্বোধন করেন ভারতে নিযুক্ত রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত কুদাসেভ নিকোলাই রিশাতোভিচ।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়সহ কলকাতার বিশিষ্টজনেরা। ছিলেন বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশের কূটনীতিকেরাও।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, কলকাতার বইমেলা বৈচিত্র্যের মধ্যে এক ঐক্যের বার্তা বয়ে নিয়ে আসে। এই বইমেলা দেশে দেশে মৈত্রী বন্ধনের সেতু গড়ে তোলে। তাই আজও কলকাতার বইমেলা বিশ্বব্যাপী সমাদৃত।

উদ্বোধনের পর মুখ্যমন্ত্রী মমতার লেখা ১৩টি বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করা হয়। এই নিয়ে মমতার লেখা ১০১টি বই প্রকাশিত হল। এ অনুষ্ঠানে স্বাগত ভাষণ দেন বইমেলার আয়োজক সংস্থা পাবলিশার্স অ্যান্ড বুকসেলার্স গিল্ডের সভাপতি ত্রিদিব চট্টোপাধ্যায়।

রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত বলেন, ভারতের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক সুদূর অতীত থেকে। এবার এই বইমেলার রাশিয়া অংশীদার হতে পেরে গর্বিত। এই বইমেলা আমাদের দুই দেশের সম্পর্ককে আরও গভীর করবে। আমাদের এই মৈত্রী বন্ধন আরও দৃঢ় হবে।

এবারের এই বইমেলায় যোগ দিয়েছে বাংলাদেশসহ বিশ্বের ২০টি দেশ। এর মধ্যে আছে রাশিয়া, কোস্টারিকা, স্পেন, স্কটল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, গুয়াতেমালা,আর্জেন্টিনা, জাপান, হাঙ্গেরি, ফ্রান্স, ইংল্যান্ড, মেক্সিকো, ভিয়েতনাম ও পেরু। এসব দেশ থেকে আসার কথা কবি, সাহিত্যিক ও লেখকরা যোগ দেবেন বইমেলায় আয়োজিত সাহিত্য উৎসবে।

এবারের বইমেলায় বাংলাদেশ প্যাভিলিয়ন তৈরি হয়েছে শান্তিনিকেতনের বাংলাদেশ ভবনের আদলে। এতে বাংলাদেশের ৪১টি প্রকাশনা সংস্থা ঠাঁই পাবে।

৯ ফেব্রুয়ারি বইমেলার সমাপ্তি দিনে বইমেলায় উদযাপিত হবে বাংলাদেশ দিবস। ওই দিনে বাংলাদেশ থেকে যোগ দেবে বাংলাদেশের প্রথিতযশা কবি-সাহিত্যিক -লেখক ও বিভিন্ন স্তরের বুদ্ধিজীবীসহ মন্ত্রী এবং সাংসদেরা।

আগামী বছর বইমেলার থিম কান্ট্রি হবে বাংলাদেশ। বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ ঘিরে আগামী বছরের বইমেলা উৎসর্গ হবে বঙ্গবন্ধুর নামে।

0Shares





Related News

Comments are Closed