Main Menu
শিরোনাম
কমলগঞ্জে গ্রেপ্তার আতংকে ঘরে ঘরে ঝুলছে তালা         সিলেট শিক্ষা বোর্ডের নতুন চেয়ারম্যান রমা বিজয় সরকার         সিলেটে একদিনে আরো ৩৬ জনের করোনা শনাক্ত         সিলেটে মাস্ক না পরায় ১০৭ জনকে জরিমানা         গোলাপগঞ্জে বিজ্ঞান মেলার উদ্বোধন         ডিসেম্বরেই চালু হচ্ছে তাহিরপুর সীমান্তের বর্ডার হাট         রাজনগরে গ্রামবাসীর ওপর হামলা-মামলার অভিযোগ         সিলেট জেলা যুবদল নেতা বাপ্পি গ্রেফতার         ধর্মীয় নেতাদের নিয়ে এফআইভিডিবি’র কর্মশালা         রমণকন্যার বৃক্ষরোপণ কর্মসূচী সমাপ্ত         সিলেটে আরো ৩৪ জন করোনায় আক্রান্ত , সুস্থ ৩৩         ওসমানীনগরে তরুণীর আত্মহত্যা        

কমলগঞ্জে হামলায় সাবেক মহিলা ইউপি সদস্য আহত

কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি: পূর্ব বিরোধের জের ধরে সন্ত্রাসী হামলায় মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার ২নং পতনঊষার ইউনিয়নের ধুপাটিলা গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা ও আওয়ামীলীগ নেতা নজরুল ইসলামের স্ত্রী, সাবেক মহিলা ইউপি সদস্য, আওয়ামীলীগ নেত্রী নুরজাহান ইসলাম (৫৮) গুরুতর আহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় পতনঊষার ইউনিয়নের ধূপাটিলা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। গুরুতর আহত নুরজাহান ইসলামকে স্থানীয়রা দ্রæত উদ্ধার করে প্রথমে কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে অবস্থার অবনতি হওয়ায় মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

গুরুতর আহত সাবেক মহিলা ইউপি সদস্যার পতনঊষার ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা বদরুল ইসলাম রুবেল জানান, জমি সংক্রান্ত পূর্ব বিরোধের জের ধরে মঙ্গলবার সকালে ও দুপুরে পার্শ্ববর্তী বাড়ির মৃত করামত উল্যার ছেলে প্রবাস ফেরত জসিম মিয়া (৪২) তাদের বাড়িতে গিয়ে আমার মাকে হুমকি প্রদান করে। সন্ধ্যায় আমার মা পাওনা ১ লক্ষ টাকা দিতে গ্রামের ব্যবসায়ী সনওয়ার মিয়ার দোকানে যান। এ সময় কোন কিছু বুঝে উঠার আগে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে জসিম মিয়া ও তার সহযোগিরা লোহার রড দিয়ে আমার মায়ের মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করে রক্তাক্ত জখম করে। গুরুতর আহত অবস্থায় স্থানীয় লোকজন নুরজাহান ইসলামকে উদ্ধার করে কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। অবস্থার অবনতি হওয়ায় মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। এ ঘটনায় কমলগঞ্জ থানায় অভিযোগ দেয়ার প্রস্তুতি চলছে।

খবর পেয়ে কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গুরুতর আহত সাবেক মহিলা ইউপি সদস্য, আওয়ামীলীগ নেত্রী, উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সদস্য নুরজাহান ইসলামকে দেখতে যান কমলগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আছলম ইকবাল মিলন, উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বিলকিস বেগম, কমলগঞ্জ সদর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নানসহ যুবলীগ, ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত জসিম উদ্দিনকে পাওয়া না গেলেও তার বড় ভাই নঈমুল আলম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, জমি সংক্রান্ত পূর্ব বিরোধ রয়েছে। তবে এ ধরণের হামলা ও মারধর মোটেই ঠিক হয়নি। আমি নিজেও এ ঘটনায় মর্মাহত।

কমলগঞ্জ থানার ওসি আরিফুর রহমান বলেন, এ ঘটনাটি আমি অবগত হয়েছি। তবে এখন পর্যন্ত থানায় কোন লিখিত অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ পেলে তদন্তক্রমে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

0Shares





Related News

Comments are Closed