Main Menu
শিরোনাম
সিলেটে কলহের জেরে স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা, স্বামী আটক         সিলেটে ঘন ঘন দুর্ঘটনার প্রতিবাদে তিন উপজেলাবাসীর অবস্থান         ভারতে কারাভোগের পর দেশে ফিরলেন ৬ বাংলাদেশি         সিলেটে আরো ১৩ জনের করোনা শনাক্ত, সুস্থ ২০         সুনামগঞ্জে উদ্বোধনের আগেই ভেঙে পড়লো সেতু!         হবিগঞ্জে আ.লীগ প্রার্থী সেলিম বিজয়ী         সিলেটে দুর্ঘটনাস্থলে কাফনের কাপড় পড়ে অবরোধ, ৫ দাবি         সিলেটে দুই বাসের সংঘর্ষে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৮         সিলেটে দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ৭         মাধবপুরে গার্মেন্টসকর্মীকে ধর্ষণ         শপথ নিলেন গোলাপগঞ্জ পৌর মেয়রসহ নির্বাচিত কাউন্সিলররা         রাজনগরে ৪০০ আ.লীগ নেতাকর্মীর নামে মামলা        

লালাবাজারে দু’পক্ষের সংঘর্ষ, আহত ১৫

বৈশাখী নিউজ ডেস্ক : সিলেটের দক্ষিণ সুরমা উপজেলার লালাবাজারে কথা কাটাকাটির জের ধরে দুই পক্ষের মধ্যে দুই ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষ, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এসময় ইটপাটকেল ও ভাঙা বোতলের টুকরো নিক্ষেপে অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছেন। আহতদের স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

শনিবার সন্ধ্যা ৬ টা থেকে রাত ৮ টা পর্যন্ত এই সংঘর্ষ চলে। ঘটনাস্থলে এখন পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্র জানায়, সন্ধ্যা ৬ টার দিকে লালাবাজার কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের পাওনা টাকার ব্যাপারে বেঙ্গল ফুডে যান মসজিদের কোষাধ্যক্ষ পাপড়ী রেস্টুরেন্টের মালিক লিটন আহমদ। এসময় মসজিদের টাকা নিয়ে উভয়ের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। পরে পাপড়ী রেস্টুরেন্টের লিটন পক্ষ বেঙ্গল ফুডের নাজির উদ্দিনকে ধাওয়া করেন। এরপর সংঘর্ষ হিলু রাজিবাড়ি ও কাটাদিয়া গ্রামের লোকজনের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে। এসময় পাপড়ীর লিটন পক্ষ ও নাজির উদ্দিন পক্ষের মধ্যে ইটপাটকেল নিক্ষেপ হয়। এতে আহত হন অন্তত ১৫ জন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

স্থানীয় সাংবাদিক কাইয়ুম উল্লাস বলেন,‘ এখন পরিস্থিতি ভালো। পুলিশ মোতায়েন রয়েছে বাজারে। ইউপি চেয়ারম্যানসহ এলাকার প্রবীণ মুরব্বিগণ ঘটনার সমাধানে উদ্যোগ নিয়েছেন। ভুল বোঝাবুঝি থেকে ঘটনার সূত্রপাত।’

এ বিষয়ে লালাবাজার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পীর ফয়জুল হক ইকবাল বলেন,‘ উভয় পক্ষকে শান্ত থাকতে বলা হয়েছে। এবং আগামী মঙ্গলবার সকালে এটা সালিশ মিটিংয়ের মাধ্যমে নিস্পত্তির চেষ্টা করা হবে।’

জানতে চাইলে দক্ষিণ সুরমা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুল ইসলাম বলেন,‘ আমি নিজে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছি। কোনো পক্ষই অভিযোগ করেনি। স্থানীয়ভাবে আপস বৈঠকে সমাধানের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। মসজিদের টাকা চাওয়া নিয়ে কথা কাটাকাটি থেকে এই ঘটনা ঘটেছে।’

0Shares





Related News

Comments are Closed