Main Menu

কয়েক ঘন্টার বৃষ্টিতে তলিয়ে গেছে সিলেট নগরের অনেক এলাকা

বৈশাখী নিউজ ডেস্ক: ঈদের দিন (সোমবার) ভোররাত ৪টা থেকে সিলেটে ভারী বর্ষণ শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে তলিয়ে গেছে মহানগরের অনেক এলাকা। রাস্তাঘাট ডুবে পানি ঢুকেছে অনেকেরই বাসাবাড়ি ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে।

এ অবস্থায় ঈদগাহে মুসল্লির উপস্থিতি ছিলো অনেক কম। বেশিরভাগ মুসল্লি পার্শ্ববর্তী মসজিদে ঈদের জামাত আদায় করেন।

অনেকের ঘরের ভেতর কোমর সমান পানি। শয়নকক্ষের খাট ডুবন্ত প্রায় পানিতে। বৃষ্টি হচ্ছে বাড়তে পারে উচ্চতা। সেই শঙ্কায় খাটের উপর কেদারায় রেখে তাতে কাপড়চোপড় মুড়িয়ে রাখা হয়েছে। ঘরের বাইরে পানিতে অর্ধেক ডুবে গেছে মোটরসাইকেল। এমন দৃশ্যটি দেখা যায় সিলেট নগরীর মিরের ময়দান পায়রা এলাকার আজমল আলীর বাসায়।

নগরীর বনকলা আজাদী জামে মসজিদের ভেতরে প্রবেশ করেছে পানি। সেই পানি সরাতে ব্যস্ত দেখা গেছে কয়েকজন মুসল্লিকে। শুধু এই দুই এলাকায় নয়। সোমবার (১৭ জুন) ঈদের দিন ভোরে নগরীর বেশির ভাগ এলাকায় একই অবস্থায় দেখা যায়।

সোমবার ভোররাত থেকে সিলেটে অবিরাম ভারী বৃষ্টিপাত হচ্ছে। টানা কয়েক ঘন্টা বৃষ্টির ফলে নগরীর বিভিন্ন এলাকার রাস্তাঘাট ডুবে গেছে পানিতে। সড়ক উপচে পানি ঢুকেছে অনেকের বাসাবাড়ি ও দোকানপাটে। এমনকি কোমর সমান পানি বইছে আম্বরখানা-বিমানবন্দর সড়কে।

জানা যায়, সোমবার ভোররাত থেকে শুরু হয় ভারী বৃষ্টিপাত শুরু হয়। সোমবার (১৭ জুন) পবিত্র ঈদুল আজহার সকালে সিলেটবাসী কোমর সমান পানিতে ভাসছেন। মুষলধারায় ভারী বর্ষণে সিলেট নগরীর নিচু এলাকাগুলোর প্রায় সব সড়কে জলাবদ্ধতা তৈরি হয়েছে। শহরতলীর মেজরটিলা এলাকায় বৃষ্টির পানিতে জলাবদ্ধতা তৈরি হয়ে বাসাবাড়িতে পানি প্রবেশ করেছে। রাত থেকে অনেকটা গৃহবন্দি ওইসব এলাকার মানুষ। এছাড়াও নগরীর উপশহর, দরগাহ মহল্লা, বাগবাড়ি, কানিশাইল, লামাপাড়া, লালা দিঘিরপাড়, মাছুদিঘির পাড়, দক্ষিণ সুরমার সড়কসহ বেশ কয়েকটি এলাকার দোকানপাট রাস্তাঘাট ও বাসা বাড়িতে পানি প্রবেশ করেছে। এতে করে ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে ঈদের জামাত পড়তে যাওয়া মুসল্লিদের।

বৃষ্টিতে নগরীর এসব এলাকা জলাবদ্ধতা তৈরি হওয়ায় সাধারণ মানুষ ও এলাকাবাসী দোষারোপ করছেন নগর কর্তৃপক্ষকে।

এদিকে, আবহাওয়া অধিদপ্তর সিলেট কার্যালয়ের সহকারী আবহাওয়াবিদ শাহ মোহাম্মদ সজিব হোসেন জানান, রোববার সকাল ৬টা থেকে সোমবার সকাল ৬টা পর্যন্ত ১৭৩ দশমিক ৬ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে।

আবহাওয়ার পূর্বাভাসে আগেই বলা হয়েছিলো- ঈদের দিন সিলেট অঞ্চলে বৃষ্টি হতে পারে।

সকাল সোয়া ১০টায় এরিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বৃষ্টিপাত অব্যাহত ছিল।

Share





Related News

Comments are Closed