Main Menu
শিরোনাম
ফেঞ্চুগঞ্জে অবৈধ কারেন্ট জাল জব্দ, জরিমানা         সিলেটে প্রকৌশলীর উপর হামলাকারীদের গ্রেপ্তার দাবি         শ্রীমঙ্গলে ট্রেনে কাটা পড়ে নারীর মৃত্যু         ৪দিন বন্ধের পর খুলেছে ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক         সিলেট জেলায় আরো ৬৬ জনের করোনা শনাক্ত         কোম্পানীগঞ্জে নৌপথে চাঁদাবাজিকালে আটক ৫         গোলাপগঞ্জে ১০জন ভিক্ষুককে ১০০টি হাঁস প্রদান         জাফলংয়ে অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধে অভিযযান         কানাইঘাটে গৃহবধূ গণধর্ষণের আসামি গ্রেপ্তার         তাহিরপুরে যাদুকাটা নদীতে চাঁদাবাজী বন্ধের দাবি         জগন্নাথপুর পৌরসভায় ৩৬ কোটি টাকার বাজেট         দক্ষিণ সুরমায় ধর্ষণ মামলার আসামি গ্রেপ্তার        

মুক্তি পেলেন খালেদা জিয়া

বৈশাখী নিউজ ডেস্ক: দীর্ঘ ২৫ মাস পর সরকারের দেওয়া শর্তের ভিত্তিতে মুক্তি পেলেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। আজ বুধবার (২৫ মার্চ) বেলা আড়াইটার দিকে বিএসএমএমইউতে কারা কর্মকর্তা চিঠি নিয়ে যান। পরে তিনি মুক্তি পান।

বিএনপি চেয়ারপারসনের একান্ত সচিব আব্দুস সাত্তার বিষয়টি সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, বেলা তিনটা পাঁচ মিনিটের দিকে খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেওয়া হয়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রিজন সেল থেকে মুক্তি দেওয়ার পর পরিবারের সদস্যরা এবং বিএনপির মহাসচিব তাকে গ্রহণ করেন।

এর আগে মঙ্গলবার বিকেলে হঠাৎ করেই ডাকা সংবাদ সম্মেলনে খালেদা জিয়াকে মুক্তির বিষয়ে সিদ্ধান্তের কথা জানান আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

তিনি বলেন, মানবিক দিক বিবেচনায় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে দুই শর্তে তাকে মুক্তি দেওয়ার এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। খালেদা জিয়া বাসায় থেকে চিকিৎসা নেবেন এবং বিদেশ যেতে পারবেন না- এমন শর্তে তাকে মুক্তির সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলছে, খালেদা জিয়াকে তার ছোট ভাই শামীম ইস্কান্দারের জিম্মায় মুক্তি দেওয়া হচ্ছে।

বিএনপি চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইং সূত্র জানায়, শামীম ইস্কান্দারের সঙ্গে উপস্থিত বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরও। তারা হাসপাতাল থেকে খালেদা জিয়াকে নিয়ে যাচ্ছেন তার ‍গুলশানের বাসভবন ‘ফিরোজা’য়।

এর মধ্যে দুপুর আড়াইটার দিকে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এসে পৌঁছেন বিএসএমএমইউ হাসপাতালে। সেখানে বিএনপির অন্য নেতাকর্মীরাও উপস্থিত হয়েছিলেন দুপুর থেকেই।

তবে বিএনপি মহাসচিব এসেই তাদের প্রতি উষ্মা প্রকাশ করেন, করোনাভাইরাসের ঝুঁকির মধ্যেও কেন তারা এসে ভিড় জমিয়েছেন।

এছাড়া ডা. হারুনুর রশিদের নেতৃত্বে খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত মেডিকেল টিমও আসে বিএসএমএমইউতে।

খালেদা জিয়ার মুক্তি উপলক্ষে বিএসএমএমইউ হাসপাতালের সামনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উল্লেখযোগ্যসংখ্যক সদস্যদেরও উপস্থিতি ছিল। গোয়েন্দা পুলিশের সদস্য ছাড়াও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অনেক সদস্য রয়েছেন সাদা পোশাকে।

এর আগে, দুপুর ১২টার দিকে গুলশানে খালেদা জিয়ার বাসভবন ‘ফিরোজা’য় গিয়েছিলেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। মুক্তির পর এই ভবনটিতেই অবস্থান করবেন খালেদা জিয়া। ফলে ভবনটি তার বসবাসের জন্য প্রস্তুত রয়েছে কি না, তার সার্বিক খোঁজখবর নেন তিনি।

উল্লেখ্য, বিদেশে চিকিৎসার জন্য মুক্তি চেয়ে স্বরাষ্ট্র ও আইনমন্ত্রীর কাছে চিঠি দিয়েছিল তাঁর পরিবার।

খালেদা জিয়ার বোন সেলিমা ইসলাম বলেছিলেন, তারা তাদের চিঠিতে প্যারোলের বিষয়ে সুনির্দিষ্ট করে কিছু লেখেননি।

একই সাথে তিনি উল্লেখ করেছেন, এখন তার বোনের জীবন বাঁচাতে চিকিৎসার জন্য প্যারোলে মুক্তি দেয়া হলেও তাদের পরিবারের সদস্যদের কোনো আপত্তি থাকবে না।

তবে পরিবারের অন্য একটি সূত্র এবং সরকারি সূত্রে জানা গেছে, পরিবারের চিঠিতে মানবিক কারণে সরকারের নির্বাহী আদেশের মাধ্যমে খালেদা জিয়ার মুক্তি চাওয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, দুই বছরের বেশি সময় ধরে কারাগারে ছিলেন খালেদা জিয়া। এর মধ্যে গত ১১ মাস ধরে তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

২০০৮ সালে বিএনপি চেয়ারপার্সনের বিরুদ্ধে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ মামলা দায়ের হয়। মামলার দশ বছর পর ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে রায়ে তার পাঁচ বছরের কারাদণ্ড হয়। তবে পরে হাই কোর্ট সেই সাজা বাড়িয়ে দশ বছরের কারাদণ্ডের আদেশ দেন।

0Shares





Related News

Comments are Closed