সর্বশেষ

চলতি বন্যায় সিলেটে সড়ক মহাসড়কের বেহাল দশা

বৈশাখী নিউজ ২৪ ডটকম । প্রকাশিতকাল : ৫:৪৪:৩৮,অপরাহ্ন ০৩ আগস্ট ২০১৭ | সংবাদটি ২৫৩ বার পঠিত

বৈশাখী নিউজ ২৪ ডটকম: সা¤প্রতিক টানা বর্ষণ আর পাহাড়ি ঢলে সৃষ্ট বন্যায় সিলেটের সড়ক-মহাসড়কগুলোয় বিরাজ করছে বেহাল দশা। দীর্ঘদিন সংস্কার না করায় ইট-পাথর আর বিটুমিনের কার্পেটিং উঠে সড়কগুলোয় সৃষ্টি হয়েছে অসংখ্য ছোট বড় গর্তের। বিশেষত কয়েকদিনের টানা বর্ষণ আর পাহাড়ি ঢলে সৃষ্ট দুই দফা বন্যায় অধিকাংশ সড়কের কার্পেটিং উঠে গেছে। তাছাড়া বিভিন্ন স্থানে সড়ক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বন্যার পানি নেমে গেলেও ক্ষতিগ্রস্ত এসব সড়ক সংস্কার করা হয়নি। ফলে এসব সড়ক দিয়ে যানবাহন চলাচলসহ ভোগান্তিতে পড়ছে সাধারণ মানুষ। ঘটছে দুর্ঘটনাও।
চলতি বন্যায় সিলেট-বিয়ানীবাজার সড়কের চারখাই থেকে বিয়ানীবাজার পর্যন্ত প্লাবিত হয়ে এক সপ্তাহের মতো যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন ছিল। একইভাবে ফেঞ্চুগঞ্জ-মাইজগাঁও-পালপুর সড়কের বিভিন্ন জায়গাও পানিতে নিমজ্জিত ছিল। ভাদেশ্বর-ফেঞ্চুগঞ্জ সড়কটিও বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়ে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। একইভাবে অতিবৃষ্টির কারণে সিলেট-তামাবিল সড়কের সারীঘাট পয়েন্ট থেকে গোয়াইনঘাট উপজেলা সদর পর্যন্ত সড়কে বিরাজ করছে বেহাল দশা। কাজে ধীরগতির কারণে সিলেট-কোম্পানীগঞ্জ-ভোলাগঞ্জ সড়কেও চলাচলে ভোগান্তিতে পড়ছেন যাত্রীসাধারণ। এছাড়া বিয়ানীবাজার-জকিগঞ্জ সড়কের খাড়াভরা অংশে ভাঙন দেখা দিয়েছে। এ কারণে জকিগঞ্জ শুল্ক স্টেশনে মালামাল বহনকারী যানবাহন এ পথ এড়িয়ে শাহবাগ-জকিগঞ্জ সড়ক দিয়ে চলাচল করছে।
এদিকে সিলেটের দক্ষিণ সুরমার বাবনা মোড় পয়েন্ট থেকে কামালবাজার সড়কের বিভিন্ন অংশে ছোট বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। বিশেষ করে সড়কের টেকনিক্যাল রোড এবং মকন দোকান অংশের দশা বড়ই বেহাল। স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, ৭ থেকে ৮ মাস ধরে রাস্তার এ অবস্থা হলেও তা সংস্কারে কোনো পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে না।
বিয়ানীবাজার উপজেলা প্রকৌশলী রামেন্দ হোম চৌধুরী জানান, সড়কের ক্ষতিগ্রস্ত অংশ বিয়ানীবাজার এলাকায় হলেও এ কাজের দায়িত্বে রয়েছে জকিগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশল অফিস। এ ব্যাপারে জকিগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী বিদ্যুৎ কুমার দাস বলেন, সড়কের ক্ষতি নিরূপণ করে সংস্কার করার জন্য স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন পাঠানো হয়েছে।
এলজিইডি সূত্রে জানা গেছে, বন্যা ও অতিবৃষ্টির কারণে অনেক সড়কের কার্পেটিং উঠে গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। অনেক সড়কের দুই পাশ ধসে অথবা ভেঙে গেছে। সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এলজিইডির আওতাধীন গ্রামীণ সড়কগুলো। সিলেট জেলায় এলজিইডির আওতাধীন প্রায় ২১৭ কিলোমিটার পাকা সড়ক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কাঁচা সড়ক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে প্রায় ৩৫৪ কিলোমিটার। এলজিইডির আওতাধীন জেলার ক্ষতিগ্রস্ত পাকা সড়কগুলো মেরামতে প্রায় ৩৪ কোটি টাকা প্রয়োজন বলে জানান কর্মকর্তারা।
সিলেট এলজিইডির নির্বাহী প্রকৗশলী এ এস এম মহসিন বলেন, সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বিয়ানীবাজার উপজেলার ৪৯ কিলোমিটার সড়ক। এছাড়া বালাগঞ্জে ৪০, সদরে ৩৫, গোয়াইনঘাটে ৩১, গোলাপগঞ্জে ২২, ফেঞ্চুগঞ্জে ১৫ কিলোমিটারসহ অন্যান্য উপজেলার আরও কিছু সড়ক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।
অন্যদিকে, সিলেট জেলায় সওজের অধীন দুইটি উপজেলার তিনটি সড়কে ৬ কিলোমিটার প্লাবিত হয়। সিলেট-বিয়ানীবাজার সড়কের চারখাই থেকে বিয়ানীবাজার পর্যন্ত প্লাবিত হয়ে এক সপ্তাহের মতো যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন ছিল। একইভাবে ফেঞ্চুগঞ্জ-মাইজগাঁও-পালপুর সড়কের বিভিন্ন জায়গাও পানিতে নিমজ্জিত ছিল। ভাদেশ্বর-ফেঞ্চুগঞ্জ সড়কটিও বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়ে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়।
সওজ সিলেটের নির্বাহী প্রকৗশলী উৎপল সামন্ত বলেন, কিছু সড়ক প্লাবিত হওয়া ছাড়া বন্যায় সওজের আওতাধীন রাস্তাঘাটের তেমন ক্ষতি হয়নি। তবে বেশি ক্ষতি হয়েছে অতিবৃষ্টিতে। এতে পুরো জেলায় সওজের ৫৪৪ কিলোমিটার সড়কের মধ্যে অন্তত ১৫০ কিলোমিটারে ছোট বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে।

 






Related News

  • গৌরব-সৌরভে এক খন্ড সিলেট
  • জৈন্তাপুরে ফাঁদ পেতে অবাধে পাখি নিধন
  • তথ্য প্রযুক্তির দাপটে বিশ্বনাথে হারিয়ে যাচ্ছে ডাকবক্স
  • ডিসেম্বরেই স্থানান্তর হচ্ছে সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগার
  • সিলেট গৌরবের অংশিদার হলেন ডিসি রাহাত আনোয়ার
  • আবারো অপারেশন থিয়েটারে যেতে হবে খাদিজাকে
  • চলতি বন্যায় সিলেটে সড়ক মহাসড়কের বেহাল দশা
  • পুরুষের শুক্রাণু কমে যাচ্ছে, ‘বিলুপ্ত হতে পারে মানুষ’: গবেষণা
  • Comments are Closed