সর্বশেষ
মাধবপুরে বিজিবির অভিযানে ১২ কেজি গাঁজা উদ্ধার         জামালগঞ্জে ভীমরুলের কামড়ে শিশুর মৃত্যু         রাজনগরে তৃতীয়বার তলিয়ে গেল কৃষকের স্বপ্ন         নবীগঞ্জে ৫ পলাতক আসামী গ্রেফতার         বিশ্বনাথে গ্রাম আদালত শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্টিত         ছাতকে মালামালসহ ৩ ডাকাত গ্রেফতার         ছাতকে ভিক্ষুক মহিলাকে ধর্ষণ, আটক ১         কমলগঞ্জের সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আনোয়ার খান আর নেই         মাধবপুরে ২১শ’ পিস ইয়াবাসহ আটক ৩         পৈত্রিক সম্পত্তি আত্মসাতে ভাইয়ের রোষানলে প্রবাসী মানিক         ধলাই নদের ৬টি স্থানে ভাঙ্গন, তলিয়ে গেছে আমন ফসল ও রাস্তা         কমলগঞ্জ ফারিয়া’র কমিটি গঠন        

চার বছরেও সন্ধান মিলেনি শিশু জয়ীর

বৈশাখী নিউজ ২৪ ডটকম । প্রকাশিতকাল : ৪:১০:০৫,অপরাহ্ন ২১ জুলাই ২০১৭ | সংবাদটি ৯৪ বার পঠিত

ওসমানীনগর (সিলেট) সংবাদদাতা: অপেক্ষার প্রহর গুণে দীর্ঘ ৪ বছর পেড়িয়ে গেছে। শুকিয়ে গেছে চোখের নুনা জল। একমাত্র বুকের ধনকে ফিরে পেতে আর কতকাল অপেক্ষা করতে হবে এবং আর কত অশ্রু বিসর্জন দিতে হবে এমন প্রশ্ন নিখোঁজ শিশু জয়ীর মাতা-পিতার। তবে তাদের প্রশ্নের উত্তর কারো জানা নেই। একমাত্র সৃষ্টিকর্তার উপর ভরশা করেই আশায় বুক বেঁধে অপেক্ষার প্রহর গুণছেন তারা।
২০১৩ সালের ২১ জুলাই বিয়ের অনুষ্ঠানে বেড়াতে গিয়ে সিলেট নগরীর শেখঘাট ভাঙ্গাটিকর নবীন ৩৪/৩ বিজন বিহারী দাম’র বাসা থেকে অপহৃত হয় ওসমানীনগরের ইলাশপুর গ্রামের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক সন্তোষ দেব এবং সিলেট জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের অফিস সহকারি সর্বানী দেব তুলি’র একমাত্র শিশু কন্যা স্নিগ্ধা দেব জয়ী । তখন তার বয়স ছিল ৪ বছর। একমাত্র মেয়েকে ফিরে পেতে পুরস্কার ঘোষণাসহ কত কিছুই করেছেন। ছুটেছেন দেশের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রাšে, গিয়েছেন আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বিভিন্ন বাহিনীর কাছে। ছুটেছেন বিভিন্ন পীর ফকিরের কাছেও। কিন্তু কিছুতেই ফল পাননি এই হতভাগ্য দম্পতি।
জয়ী অপহরণের ঘটনায় প্রথমে সাধারণ ডায়রী এবং পরবর্তীতে অপহরণ মামলা দায়ের হয়। ২০১৪ সালে মামলার মূল সন্দেহভাজন সন্তোষ দেবের মামাতো ভাই শঙ্কর দামসহ তিনজনকে আটক করার পর একজন স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিলে তাদেরকে উক্ত মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়। ২০১৫ সালে জয়ীর মা মেয়েকে উদ্ধারের ব্যাপারে উচ্চ আদালতে একটি রীট পিটিশন করলে জয়ীকে উদ্ধারে পুলিশকে একমাসের সময় বেঁধে দেন আদালত। নির্ধারিত সময় পেরিয়ে যাওয়ার পর মামলাটি সিআইডি পুলিশে স্থানান্তর করা হলে তারাও জয়ীর কোন সন্ধ্যান বের করতে পারেনি। দীর্ঘ তদন্তের পর গত ২৪ জুন মাছ ব্যবসায়ী রবিউল, অনিতা ভট্টাচার্য্য ও শংকর দামকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র (চার্জশীট) দাখিল করে সিআইডি পুলিশ। অভিযুক্ত তিনজনই জামিনে ছিল। গত বুধবার সিআইডি পুলিশের অভিযোগপত্র সিলেট চীফ জুডিসিয়াল আদালতে শুনানি কালে অভিযুক্ত অনিতার জামিন বাতিল করে দেন বলে জানিয়েছেন জয়ীর পিতা সন্তোষ দেব।
সন্তোষ দেব ক্ষোভের সাথে বলেন, একমাত্র মেয়ে অপহরণের পর থেকে একটি রাতও শান্তিমত ঘুমাতে পারিনি। মেয়েকে ফিরে পেতে পাগলের মতো ছুটাছুটি করছি। দেশের আইন শৃংখলা বাহিনী সফলতার সহিত জঙ্গীদের খোঁজে বের করে জঙ্গীবাদের পতন ঘটাচ্ছে। কিন্তু জঙ্গীদের চাইতে আমার অবুঝ মেয়ের চিহ্নিত অপহরণকারীরা সামান্য হলেও মেয়েকে উদ্ধার দুরের কথা কোন রহস্যই উদ্ঘাটন সম্ভব হয়নি। মেয়েকে ফিরে পেতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন তিনি।
সিলেট সিআইডি জোনের এএসপি শামীমুল রশিদ পীর বলেন, শিশুটির সন্ধান বের করে উদ্ধার করতে আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা করেছি। দীর্ঘ তদন্তের পর গত মাসে তিন জনকে অভিযুক্ত করে মামলার চার্জশীট আদালতে দাখিল করা হয়েছে।






Related News

  • বিশ্বনাথে ধর্ষণের অভিযোগে ইউপি সদস্য হিরন আটক
  • বিয়ানীবাজারের চাঞ্চল্যকর শিশু ধর্ষণ মামলার চার্জশীট চলতি মাসেই
  • বিয়ানীবাজারে সেই শিশু ধর্ষক সরোয়ার জামিনে মুক্ত
  • হেলিম চৌধুরীর সাথে বিয়ের ছবি প্রকাশ
  • সিলেটে পরকীয়া প্রেমিক জুটি আটক
  • চার বছরেও সন্ধান মিলেনি শিশু জয়ীর
  • মার্কেটে অনাকাঙ্ক্ষিত স্পর্শের শিকার ৫০ ভাগ নারী
  • সিলেটে আমেরিকা প্রবাসী নারীসহ যুবক আটক
  • Comments are Closed