Main Menu

সিলেটে কবরস্থান দখল চেষ্টার প্রতিবাদে মানববন্ধন

বৈশাখী নিউজ ২৪ ডটকম: সিলেটের দক্ষিণ সুরমা উপজেলার ৫নং সিলাম ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের নয়াপাড়া গ্রামের পঞ্চায়েতী কবরস্থানটি দখলের পায়তারার প্রতিবাদে ১০ ফেব্রæয়ারি রোববার বেলা ১১টায় সিলেটের জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে এক বিশাল মানববন্ধন ও জেলা প্রশাসক বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করেন নয়াপাড়া গ্রামবাসী।

জানা যায়, ১৯৬৪ সালে সম্প্রদায়িক দাঙ্গার সময় ভারত থেকে আগত মুসলিম শরণার্থীদেরকে তৎকালীন সরকার জেলা প্রশাসকের অধীনে দক্ষিণ সুরমার সিলাম মৌজার ১১৭৪নং দাগের খাস ভ‚মিতে পুনর্বাসিত করে। সেই থেকে নয়াপাড়াবাসী ১১৭৪নং দাগের খাস ভ‚মি টিলা রকম ভ‚মিকে তাদের পঞ্চায়েতী কবরস্থান হিসেবে ব্যবহার করে আসছে। যেখানে শত শত কবর এখনো বিদ্যমান রয়েছে। ৯০ দশকের পরে হঠাৎ করে পাশর্^বর্তী এলাকা ঢালীপাড়া গ্রামের মৃত আব্দুর লতিফ তহশীলদার গংরা উক্ত কবরস্থানটি চারা-বিচরা উল্লেখ করে তাদের বলে দাবী করে লাশ দফনে বাধা প্রদান করেন। তখন মুওয়াজিরগণ প্রশাসনের দারস্থ হলে তৎকালীন থানা নির্বাহী অফিসার স্বশরীরে উপস্থিত হয়ে কবরস্থানটি পরিদর্শন করে শত শত কবর দেখে হতভাগ হন এবং আব্দুল লতিফকে ভৎসনা করে এমন কাজ ভবিষ্যতে না করার জন্য মুচলেকা আদায় করেন। এরপর তারা নিরব হয়ে যায়।

২০০৫ সালে আবারো তারা কবরস্থানটি তাদের বলে দাবী করে লাশ দফনে বাধা প্রদান করেন। মুওয়াজিরগণ প্রশাসনের দারস্থ হলে তৎকালী দক্ষিণ সুরমা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আ.ই. মোঃ জিয়াউদ্দিন আল মামুন কবরস্থানটি পরিদর্শন করে স্মারক নং উনিঅ/ দুঃসু/ ০৫১৮০ তারিখ ১৮/০৮/২০০৫ইং উল্লেখিত ব্যক্তিদের কবর স্থান দখল ও লাশ দাফনে বিঘ্ন না ঘটানোর নির্দেশ প্রদান করেন।

ইদানিংকালে আবারো মৃত আব্দুল লতিফ তহশীলদারের ভাতিজা আব্দুল্লাহ আল মামুন গংরা কবরস্থানটিকে কৃষি জমি বলে উল্লেখ করে তাদের বলে দাবী করে তা দখলের পায়তারা শুরু করেছে এবং এই বিষয়ে দক্ষিণ সুরমা উপজেলা ভ‚মি কর্মকর্তা কর্তৃক নয়াপাড়াবাসীর কয়েকজনের নামে নোটিশ জারি করেছে। যেখানে টিলা রকম ভ‚মি কবরস্থানটিতে গত ৫৪ বছর যাবৎ লাশ দাফন করা হচ্ছে তা কৃষি জমি হয় কিভাবে। বিষয়টি প্রশাসনকে খতিয়ে দেখার আহবান জানান নয়াপাড়া গ্রামবাসী।

উল্লেখ্য, নয়াপাড়ায় বসবাসকারী মুওয়াজিররা অত্যন্ত দরিদ্র ও নিরীহ জনগণ। তাই এই বিষয়ে প্রশাসন সহ সচেতন মহলের সহযোগিতা কামনা করেছেন নয়াপাড়াবাসী।

মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন সুমন আহমদ সুরফান, ইসরাইল আলী, মোঃ নুর মিয়া, সুমন আহমদ, তাহির আলী, আব্দুল আজিজ, গোলাপ মিয়া, আশোক মিয়া, আক্কিল মিয়া, সেবুল মিয়া, মিনুয়ার আহমদ মাছুম, মকবুল হোসেন, আকবুল হোসেন, নজরুল ইসলাম, শিবলু, আজমত আলী, আল আমিন, হোসন, রনি, মখলিছ মিয়া, মুসলিম মিয়া, মফিজ মিয়া সহ শতাধিক গ্রামবাসী।

পরে সিলেটের জেলা প্রশাসক বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। স্মারকলিপি গ্রহণ করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) স্বদ্বীপ কুমার সিংহ।






Related News

Comments are Closed