Main Menu

স্বয়ংক্রিয় গাড়ি পার্কিং পদ্ধতি উদ্ভাবন করলেন সিলেটের তিন শিক্ষার্থি

বৈশাখী নিউজ ডেস্ক: সিলেটের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় লিডিং ইউনিভার্সিটির ইলেকট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক্ ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তিন শিক্ষার্থী যানজট নিরসনে তৈরী করেছেন স্বয়ংক্রিয় আধুনিক গাড়ি পার্কিং পদ্ধতি। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নবেন্দু দে, অনিক মিয়া এবং রাকিবুল ইসলামের তৈরি করা স্বয়ংক্রিয় গাড়ি পার্কিং পদ্ধতি যার পুরোটাই প্রোগ্রামেবল লজিক কন্ট্রোলার(পিএলসি) দ্বারা নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে। যা আবিষ্কারের দিক দিয়ে বাংলাদেশের প্রথম। তাদের এই প্রজেক্টটি তৈরির সার্বিক তত্বাবধানে ছিলেন লিডিং ইউনিভার্সিটির ইলেকট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক্ ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ও সহযোগী অধ্যাপক রুমেল এম এস রহমান পীর এবং সহকারী প্রভাষক নিয়াজ মুর্শেদুল হক।

শিক্ষার্থীরা জানান, আমাদের দেশের শহর অঞ্চলে মানুষ বসবাসের প্রবণতা দিন দিন বেড়েই চলেছে। তার সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মানুষের ব্যবহারকৃত গাড়ি ও যানবাহনের সংখ্যা। কিন্তু এই যানবাহন রাখার মতো পর্যাপ্ত জায়গা বৃদ্ধি পাচ্ছে না, এতে করে গাড়ি পার্কিং এর জায়গা না পেয়ে রাস্তায় যেখানে সেখানে গাড়ি পার্কিং করা হচ্ছে। যার ফলে সৃষ্টি হচ্ছে যানজট। এই যানজটের কারণে একদিকে যেমন নষ্ট হচ্ছে কাজের সময় এবং অন্যদিকে ক্ষয় হচ্ছে মূল্যবান জ্বালানী। এতে যেমন সাধারণ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। সাথে সাথে দেশও অর্থনৈতিক দিক দিয়ে ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে। এই সমস্যার কথা মাথায় রেখে এবং তা নিরসনের জন্য তিন শিক্ষার্থী মিলে দীর্ঘ ছয় মাস গবেষণার পর এই স্বয়ংক্রিয় পার্কিং পদ্ধতি আবিষ্কার করতে সক্ষম হন। যা মানুষের কোন রকম সাহায্য ছাড়াই সম্পূর্ণ স্বয়ংক্রিয় ভাবে তার কার্য সম্পাদন করতে পারে। এই পদ্ধতিতে অল্প জায়গায় একসাথে অনেক গুলো গাড়ি পার্ক করে রাখা যায়।

এই পদ্ধতিতে গাড়ি পার্কিং করতে হলে প্রথমে চালক এসে একটি নির্দিষ্ট জায়গায় তার ফিঙ্গার প্রিন্ট দেবে। যদি পার্কিং করার জন্য পর্যাপ্ত জায়গা ফাঁকা থাকে-তাহলে পার্কিং জোনের দরজা খুলে যাবে। তারপর চালক পার্কিং জোনের প্লেটে গাড়িটি রেখে চলে আসবে। তখন গাড়ি রাখা প্লেটটি স্বয়ংক্রিয় ভাবে নির্দিষ্ট ফাকা পার্কিং স্পটে গাড়িটি রেখে চলে আসবে। এইভাবে যতগুলো গাড়ি পার্কিং করার জায়গা থাকবে ততগুলো গাড়ি পার্কিং করা যাবে। আবার যখন চালক গাড়ি নিতে আসবে তখন তাকে আবার তার ফিঙ্গার প্রিন্ট দিতে হবে এবং যদি তার ফিঙ্গার প্রিন্টের সাথে মিলে যায়-তাহলে গাড়িটি আবার প্লেটের মাধ্যমে স্বয়ংক্রিয়ভাবে নিয়ে আসবে। তিন শিক্ষার্থীর আবিষ্কৃত পার্কিং সিস্টেম প্রজেক্টটি তিন তলা বিশিষ্ট। যার প্রতিটি তলায় চারটি করে গাড়ি রাখা যাবে এবং চাইলে এর সংখ্যা আরো বাড়ানো যাবে বলে জানান তারা।






Related News

Comments are Closed