Main Menu

বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত বুলবুল

বৈশাখী নিউজ ডেস্ক: রাজধানীর মিরপুর শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা, কিংবদন্তি সুরকার, গীতিকার, সংগীত পরিচালক আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল। বুধবার (২৩ জানুয়ারি) সন্ধ্যা ৭টার দিকে তাঁর দাফন সম্পন্ন হয়।

বুধবার বাদ জোহর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে তাঁর প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সাংস্কৃতিক অঙ্গনসহ সর্বস্তরের মানুষ অংশ নেন।

প্রথম জানাজা শেষে তাঁর মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশনে (বিএফডিসি)। সেখানেও আরও একবার তাঁর জানাজা হয়। সেখান থেকে এ গুণীর মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় মিরপুর বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে।

এর আগে বেলা ১১টায় আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের মরদেহ নেওয়া হয় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বরে। সেখানে তাকে গার্ড অব অনার দেওয়া হয়। এরপর রাষ্ট্রপতির পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা জানানো হয়।

গত মঙ্গলবার (২২ জানুয়ারি) ভোরে রাজধানীর আফতাবনগরে নিজ বাসায় হার্ট অ্যাটাকে আক্রান্ত হন আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল। তারপর তাঁকে মহাখালীর ইউনিভার্সেল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে সেখানে চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬৩ বছর।

আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের লেখা ও সুর করা জনপ্রিয় গানগুলোর মধ্যে রয়েছে ‘আমার গরুর গাড়িতে বউ সাজিয়ে’, ‘আমার বাবার মুখে প্রথম যেদিন শুনেছিলাম গান’, ‘আমার সারা দেহ খেয়ো গো মাটি’, ‘পড়ে না চোখের পলক’, ‘আমার বুকের মধ্যখানে মন যেখানে হৃদয় যেখানে’, ‘তোমায় দেখলে মনে হয়’, ‘যে প্রেম স্বর্গ থেকে এসে’, ‘অনন্ত প্রেম তুমি দাও আমাকে’, ‘আম্মাজান’ প্রভৃতি।

আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের সুর করা কিন্তু অন্য গীতিকার অন্য কেউ এমন জনপ্রিয় গানের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ‘সব ক’টা জানালা খুলে দাও না’, ‘সেই রেললাইনের ধারে মেঠো পথটার পাড়ে দাঁড়িয়ে’, ‘একতারা লাগে না আমার দোতরাও লাগে না’, ‘ও মাঝি নাও ছাইড়া দে’, ‘সুন্দর, সুবর্ণ, তারুণ্য, লাবণ্য’ ‘মাগো আর তোমাকে ঘুম পাড়ানি মাসি হতে দেব না’ প্রভৃতি।

আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল কাজের স্বীকৃতি হিসেবে রাষ্ট্রীয় সর্বোচ্চ সম্মান একুশে পদক, জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার এবং রাষ্ট্রপতির পুরস্কারসহ অসংখ্য পুরস্কারে ভূষিত হন।






Related News

Comments are Closed