Main Menu
শিরোনাম
বিশ্বনাথে বিএনপি নেতা ফয়জুর রহমানের ইন্তেকাল         শমশেরনগরে রেলওয়ের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান         বিশ্বনাথে ৯টি ব্যবসা-প্রতিষ্ঠানে জরিমানা         বালাগঞ্জে ডাকাতি, গৃহকর্তাসহ আহত ৪         কমলগঞ্জে আবেদনের ৫ মিনিটেই বিদ্যুৎ সংযোগ         বাংলাদেশের প্রথম ডিজিটাল সিটি হবে সিলেট: পররাষ্ট্রমন্ত্রী         বিশ্বনাথে ভারতীয় মদসহ আটক ১         তাহিরপুরে চার বছরের শিশুকে ধর্ষণ, আটক ১         গোয়াইনঘাটে ব্রীক ফিল্ডে শ্রমিক নিহত         ফুলতলী (র.)-এর ঈসালে সাওয়াব মাহফিলে লাখো মানুষের ঢল         শাবি শিক্ষার্থী প্রতীকের আত্মহত্যার ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন         সিলেটগামী বরযাত্রীবাহী মাইক্রোবাস খাদে, নিহত ৫        

টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২

প্রকাশিত: ১০:০১:২৬,অপরাহ্ন ০৮ জানুয়ারি ২০১৯ | সংবাদটি ২৭ বার পঠিত

বৈশাখী নিউজ ডেস্ক: কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলায় র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ সাব্বির হোসেন (২৫) ও হাফিজুর রহমান (৩৫) নামে দুই যুবক নিহত হয়েছেন। র‌্যাব বলছে, নিহত দুইজনই মাদক ব্যবসায়ী। সোমবার (৭ জানুয়ারি) রাত আড়াইটার দিকে উপজেলার দমদমিয়া এলাকায় ‘বন্দুকযুদ্ধের’ এ ঘটনা ঘটে।

নিহত সাব্বির বাগেরহাট জেলার চিতলমারী উপজেলার বরবাড়িয়া গ্রামের মো. ইব্রাহীম শেখের ছেলে। আর হাফিজুর ঢাকার সাভার উপজেলার নগরকুন্ডা গ্রামের মো. আব্দুল মতিনের ছেলে।

র‌্যাবের টেকনাফ অফিসের ভারপ্রাপ্ত কোম্পানি কমান্ডার এএসপি শাহ আলম বলেন, রাতে একটি কাভার্ডভ্যান টেকনাফ থেকে কক্সবাজারের দিকে যাচ্ছিল। কাভার্ডভ্যানটি দমদমিয়া এলাকায় র‌্যাবের চেকপোস্টের সামনে পৌঁছালে র‌্যাবের সন্দেহ হয়। র‌্যাব সদস্যরা কাভার্ডভ্যানটিকে দাঁড়ানোর জন্য সিগন্যাল দেন। কিন্তু কাভার্ডভ্যানটি না থামিয়ে দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করার চেষ্টা করে।

এসময় কাভার্ডভ্যানটি থেকে র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়া হয়। আত্মরক্ষার্থে র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালায়। এক পর্যায়ে গাড়ি থেকে নেমে পালানোর চেষ্টা করলে দুই মাদক ব্যবসায়ী গুলিবিদ্ধ হয়।

তাৎক্ষণিক তাদের টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হলে সেখানে চিকিৎসক দু’জনকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনাস্থল থেকে একটি বিদেশি রিভলবার, একটি ওয়ান শুটারগান, ১১ রাউন্ড গুলি ও ৪০ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়েছে।

তিনি বলেন, কাভার্ডভ্যানটিতে চারজন মাদক ব্যবসায়ী ছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে। দুই জন নিহত হলেও বাকিরা পালিয়ে গেছে।






Related News

Comments are Closed