Main Menu
শিরোনাম
বিশ্বনাথে ‘ধানের শীষ’র নির্বাচনী কার্যালয় উদ্বোধন         জৈন্তাপুরে শুকসারী ঘাট নির্মাণে গচ্ছা গেল ২০ লক্ষ টাকা         জাফলংয়ে ব্যবসায়ীকে হয়রানীর অভিযোগ         ধানের শীষ প্রতীক পেলেন ড. রেজা কিবরিয়া         শ্রীমঙ্গলে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস পালিত         গোলাপগঞ্জে দুই ইউপি চেয়ারম্যান গ্রেফতার         সিলেটে একমাত্র স্বতন্ত্র প্রার্থীর প্রতীক সিংহ         সিলেটের ৬টি আসনের প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ         গোয়াইনঘাটে গরুচোরদের হামলায় নিহত ১         হবিগঞ্জে ৭ প্রার্থীর মনোনয়ন প্রত্যাহার         পীরেরবাজারে ট্রাক চাপায় স্কুলছাত্র নিহত         গোলাপগঞ্জে যুবদল সভাপতি গ্রেফতার        

ঢাকায় বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষ, রাবার বুলেট-আগুন

প্রকাশিত: ৪:২৯:০৫,অপরাহ্ন ১৪ নভেম্বর ২০১৮ | সংবাদটি ৩৪ বার পঠিত

বৈশাখী নিউজ ডেস্ক: রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপি নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়েছে। বুধবার (১৪ নভেম্বর) বেলা ১টার দিকে এ সংঘর্ষ হয়।

বুধবার বেলা ১২টা ৫৫ মিনিটে বিএনপি কার্যালয়ের সামনের সড়ক থেকে জড়ো হওয়া নেতাকর্মীদের সরিয়ে দিতে গেলে পুলিশের সাথে বাকবিতন্ডায় জড়ায় বিএনপির অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা। একপর্যায়ে পুলিশ লাঠিচার্জ করলে তারা পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। শুরু হয় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে অন্তত ৭০-৮০ রাউন্ড টিয়ারশেল, রাবার বুলেট ছুঁড়ে। থেমে থেমে প্রায় ঘণ্টাব্যাপী চলে এই সংঘর্ষ। এসময় পুলিশের দুটি গাড়িতে আগুন দেয়া হয়। কিছু মোটরসাইকেল, গাড়ি ভাঙচুরও করা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বিএনপি নেতা মির্জা আব্বাস কয়েকশ নেতাকর্মী নিয়ে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করতে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আসেন। এসময় পুলিশ তাদের সড়ক থেকে সরিয়ে দেয়। এ নিয়ে পুলিশের সাথে নেতাকর্মীদের বাকবিতন্ডা হয়। পরে পুলিশ লাঠিচার্জ করলে উভয় পক্ষের মাঝে সংঘর্ষ শুরু হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী ওই এলাকার এক ব্যবসায়ী জানান, সংঘর্ষ শুরু হওয়ার পরে পুলিশ টিয়ারশেল নিক্ষেপ করলে পরিস্থিতি আরও উত্তপ্ত হয়ে উঠে। এসময় পুলিশ ও বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে দফায় দফায় ধাওয়া পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে। বিএনপি কর্মীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে।

এক পর্যায়ে বিক্ষুব্ধরা নয়াপল্টনের সড়কে পুলিশের পার্কিং করে রাখা একটি ভ্যানে আগুন ধরিয়ে দেয়।

সংঘর্ষের সময় বিএনপির বেশকিছু নেতাকর্মী আহন হন। গুলিবিদ্ধ হন কেউ কেউ। তাদের চিকিৎসা দিতে বিভিন্ন হাসপাতালে নেয়া হয়েছে।

মহিলা দলের ঢাকা মহানগরের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদিকা নিলুফা ইয়াসমিন ঘটনার বর্ণনা দিয়ে বলেন, ‘আমরা শান্তিপূর্ণভাবে অবস্থান করছিলাম। আজকে সকাল থেকেই পুলিশ আমাদেরকে নানাভাবে উস্কানি দিয়ে আসছে। এমন অবস্থায় দুপুরের দিকে তারা হঠাৎ করেই আমাদের ওপর চড়াও হয়।’

মহিলা দলের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক আহত মুকুল আক্তার কনা বলেন, ‘আমরা কিছু বুঝে উঠতে পারিনি। পুলিশ বিনা উস্কানিতে আমাদের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়।’

দুপুর ২টায় বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী সাংবাদিকদের বলেন, ‘বিনা উস্কানিতে সরকারের লেলিয়ে দেয়া পুলিশবাহিনী অতর্কিতভাবে বিএনপির নেতাকর্মীদের ওপর হামলা চালিয়েছে।’

আপনারা মৌচাকে ঢিল মেরেছেন কেন? পুলিশ বাহিনীর কাছে এমন প্রশ্ন রেখে তিনি বলেন, ‘আপনারা ভেবেছেন আমাদের শান্তিপূর্ণ এই মনোনয়ন ফরম বিক্রয় করার সময় হামলা চালিয়ে আমাদের স্বাভাবিক কাজ বন্ধ করবেন। সেটি আর হবে না। কোনও রক্তচক্ষুকে শহীদ জিয়ার সৈনিকেরা ভয় করে না।’

এই আক্রমণ সরকারের নির্দেশে- এমন দাবি করে রিজভী নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘সরকারের নির্দেশেই আমাদের নেতাকর্মীদের রক্তাক্ত করেছে সরকারের লেলিয়ে দেয়া পুলিশ বাহিনী।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের নেতাকর্মীদের গুলি করা হয়েছে। বেশ কয়েকজন গুলিবিদ্ধ।’

এসময় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নির্দেশে নেতাকর্মীদের ফুটপাতে শান্তিপূর্ণ অবস্থান নেয়ার আহ্বান জানান রিজভী।

এদিকে সংঘর্ষের কারণে ওই এলাকার কয়েকটি সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এতে সড়কে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।

এ ঘটনায় তাৎক্ষণিক পুলিশের বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে ঘটনাস্থলে দায়িত্ব পালনরত এক পুলিশ কমকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, তারা (বিএনপি) উস্কানিমূলকভাবে সংঘর্ষে জড়িয়েছে। আমরা অত্যন্ত ধৈর্য্যের সাথে পরিস্থিতি মোকাবেলা করেছি।

উল্লেখ্য, আজ বুধবার (১৪ নভেম্বর) তৃতীয় দিনের মতো বিএনপির মনোনয়ন ফরম বিক্রি চলছিল। এ উপলক্ষে গত দুই দিনের মত আজও বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে নেতাকর্মীদের সরব উপস্থিতি দেখা গেছে। সকাল থেকেই মিছিল নিয়ে মনোনয়ন প্রত্যাশীরা দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আসতে থাকেন। রঙ-বেরঙের ব্যানার, ফেস্টুন হাতে স্লোগান দিয়ে, ব্যান্ড বাজিয়ে বিএনপির নেতাকর্মীরা দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয় ও এর আশপাশের সড়কে মিছিল করেছেন।

নেতাকর্মীরা বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের ছবি সম্বলিত প্ল্যাকার্ড হাতে সাত দফা এক দাবি, খালেদা জিয়ার মুক্তি চাই, তারেক রহমানের মুক্তি চাই, রাজপথ ছাড়ব না ইত্যাদি স্লোগান দিচ্ছিলেন। অনেকে জনসমর্থনের প্রমাণ দিতে বিশাল বিশাল বহর নিয়ে হাজির হয়েছেন।

গত সোমবার বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জন্য মনোনয়ন ফরম কেনার মাধ্যমে ফরম বিক্রি শুরু হয়। প্রথম দিনে সোমবার এক হাজার ৩২৬টি মনোনয়ন ফরম বিক্রি করেছে দলটি।

মঙ্গলবার দ্বিতীয় দিনে আট বিভাগে মোট ১৯৯৬টি মনোনয়ন ফরম বিক্রি করে। দু’দিনে মোট মনোনয়ন ফরম বিক্রি হয়েছে ৩ হাজর ২২২টি।

প্রথমে ১২ থেকে ১৪ নভেম্বর মনোনয়ন ফরম বিক্রি করার ঘোষণা দেয় বিএনপি। পুনঃতফসিলে ভোট পেছানোর পর দলের মনোনয়ন ফরম কেনা ও জমা দেওয়ার সময় দুই দিন বাড়িয়ে ১৬ নভেম্বর করা হয়।






Related News

Comments are Closed