Main Menu
শিরোনাম
‘অসমাপ্ত উন্নয়ন সমাপ্ত করতে নৌকা মার্কায় ভোট দিন’         সিলেট-২ আসনে প্রার্থীতা ফিরে পেলেন মুহিবুর রহমান         সিকৃবিতে শোকর‌্যালি ও আলোক প্রজ্জ্বলন         ধানের শীষে ভোট দিয়ে দুঃশাসনের জবাব দিন: শফি চৌধুরী         বিশ্বনাথে বধ্যভূমি স্মৃতিসৌধে প্রশাসনের শ্রদ্ধাঞ্জলি         সিলেট জেলা বিএনপির উপদেষ্টা আব্দুল হান্নানের ইন্তেকাল         দক্ষিণ সুরমা উপজেলা প্রশাসনের শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালন         ইলিয়াসপত্নী লুনার প্রার্থীতা স্থগিতে এলাকাবাসীর প্রতিক্রিয়া         ৯৯৯-এ কল; মধ্যরাতে অসুস্থ দুই নারীর প্রতি পুলিশের মানবিকতা!         ‘মানুষ লুটপাটকারীদের মিথ্যা আশ্বাসে আর বিভ্রান্ত হবেনা’         বিশ্বনাথে হঠাৎ থেমে গেল নির্বাচনী আমেজ!         সুনামগঞ্জে পরিযায়ী পাখি বিক্রেতাকে ৪ মাসের দন্ড        

পাকিস্তানে নির্বাচনি সমাবেশে বোমা হামলায় নিহত ৮৯

প্রকাশিত: ১০:২১:৪৭,অপরাহ্ন ১৩ জুলাই ২০১৮ | সংবাদটি ১২৩ বার পঠিত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: পাকিস্তানের বেলুচিস্তান প্রদেশে একটি নির্বাচনি প্রচার সমাবেশে বোমা হামলার ঘটনা ঘটেছে। ওই হামলায় ৮৫ জন নিহত হয়েছেন।
পাকিস্তানভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ডন জানিয়েছে, এ ঘটনায় ৮৫ জন নিহত এবং দেড় শতাধিক লোক আহত হয়েছেন। বেলুচিস্তান আওয়ামী পার্টির প্রার্থী সিরাজ রাইসিনার সমাবেশে ঘটা ওই হামলায় সিরাজ নিজেও প্রাণ হারিয়েছেন। তিনি সাবেক মুখ্যমন্ত্রী নবাব আসলাম রাইসানির ভাই। এই হামলা আজকের দিনে পাকিস্তানে ঘটা নির্বাচনি সহিংসতার দ্বিতীয় ঘটনা।

প্রাদেশিক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ফায়েজ কাকার জানিয়েছেন, শুক্রবার (১৩ জুলাই) বিকালে বেলুচিস্তানের মাসতাং শহরে হামলার ঘটনাটি ঘটেছে। সিরাজ রাইসিনাকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করা হলেও হাসপাতালে নেওয়ার পথে তিনি মারা যান। বেলুচিস্তান সিভিল ডিফেন্স ডিরেক্টর আসলাম তারিন নিশ্চিত করেছেন, হামলাটি আত্মঘাতী বোমা হামলা ছিল। এতে প্রায় ১০ কেজির মতো বিস্ফোরক ব্যবহার করা হয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে কেউ এই হামলার দায় স্বীকার করেনি।

নিহত সিরাজ

নিহত সিরাজ রাইসানি বেলুচিস্তান মুত্তাহিদা মাহাজের (বিএমএম) প্রধান ছিলেন। পরে তার রাজনৈতিক দল নবগঠিত বেলুচিস্তান আওয়ামী পার্টির সঙ্গে একীভূত হয়ে যায়। তিনি পিবি-৩৫ (মাসতাং) আসনে প্রার্থী হয়েছিলেন। এই নির্বাচনে তিনি তার বড় ভাই নবাব আসলাম রাইসানির বিরুদ্ধেই প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। আসলাম রাইসানি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন।

২০১১ সালেও একবার সিরাজকে লক্ষ্য করে হামলা চালানোর ঘটনা ঘটেছিল। ওই সময় তার গাড়িতে গ্রেনেড ছোঁড়া হয়। হামলায় তিনি প্রাণে বেঁচে গেলেও তার কিশোর ছেলে নিহত হয়।

এদিকে নির্বাচনি প্রচারে মুখর পাকিস্তানে একইদিনে আরও একটি হামলার ঘটনা ঘটেছে। খাইবার পাখতুনখাওয়ার মুখ্যমন্ত্রী আকরাম খান দুররানিকে লক্ষ্য করে বোমা হামলা চালানো হয়েছে। এতে দুররানির প্রাণ রক্ষা পেলেও ৪ জন নিহত হয়েছে।

এর আগে গত মঙ্গলবার রাতে পেশোয়ারে আওয়ামী ন্যাশনাল পার্টির (এএনপি) নির্বাচনী সমাবেশে আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণে ২০ জন নিহত হন।

ওই হামলায় এএনপির নেতা ও নির্বাচনের প্রার্থী হারুন বিলার প্রাণ হারান। পরে ওই হামলার দায় স্বীকার করে কট্টরপন্থী সংগঠন তালেবান।






Related News

Comments are Closed