Main Menu
শিরোনাম
কোম্পানীগঞ্জে যুবককে পিটিয়ে হত্যা         দক্ষিন সুরমায় রিক্সাচালককে পিটিয়ে হত্যা, গ্রেপ্তার ১         গোয়াইনঘাটে বাড়ির সীমানা নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ১         বিশ্বনাথে বিএনপি নেতা ফয়জুর রহমানের ইন্তেকাল         শমশেরনগরে রেলওয়ের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান         বিশ্বনাথে ৯টি ব্যবসা-প্রতিষ্ঠানে জরিমানা         বালাগঞ্জে ডাকাতি, গৃহকর্তাসহ আহত ৪         কমলগঞ্জে আবেদনের ৫ মিনিটেই বিদ্যুৎ সংযোগ         বাংলাদেশের প্রথম ডিজিটাল সিটি হবে সিলেট: পররাষ্ট্রমন্ত্রী         বিশ্বনাথে ভারতীয় মদসহ আটক ১         তাহিরপুরে চার বছরের শিশুকে ধর্ষণ, আটক ১         গোয়াইনঘাটে ব্রীক ফিল্ডে শ্রমিক নিহত        

দুর্ঘটনার পর আবারো সচল ত্রিভুবন

প্রকাশিত: ৯:৩৪:০৩,অপরাহ্ন ২০ এপ্রিল ২০১৮ | সংবাদটি ৭১ বার পঠিত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: দুর্ঘটনার পর আবারো সচল হলো নেপালের ত্রিভুবন বিমানবন্দর। বৃহস্পতিবার (১৯এপ্রিল) রাতে মালয়েশিয়াগামী মালিন্দ এয়ারের একটি বিমান রানওয়ে থেকে ছিটকে পড়লে বন্ধ হয়ে যায় বিমান চলাচল। পরে আজ (২০ এপ্রিল) দুপুরে দুর্ঘটনা কবলিত বিমানটি সরিয়ে নিলে আবারো সচল হয় বিমানবন্দরটি।

এর আগে বৃহস্পতিবার (১৯ এপ্রিল) রাত পৌনে এগারোটার দিকে মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুরগামী এ বিমানটি উড্ডয়নের সময় যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা দেয়ায় রানওয়ে থেকে ছিটকে পড়ে। মালয়েশিয়ার মালিন্দ এয়ারের এই বোয়িং ৭৩৭ বিমানটিতে ১৩৯ জন যাত্রী ছিলেন। তাদেরকে অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। তবে বিমানটিকে সরিয়ে নিতে রানওয়েতে অন্য বিমানের অবতরণ বন্ধ রাখা হয়েছিল। শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত প্রায় ১২ ঘন্টারও বেশি সময় বন্ধ ছিলো সব ধরণের বিমানের ওঠানামা।

বিমানবন্দরের মুখপাত্র প্রেম নাথ ঠাকুর বলেছেন, উড্ডয়নের সময় বিমানে সমস্যা শনাক্ত করার পর এর গতি কমিয়ে নিয়ে উড্ডয়ন বাতিল করেন পাইলট। তবে রানওয়ে থেকে ছিটকে পড়ে ঘাসের মাঠে পড়ে ৩০ মিটার গিয়ে থেমে যায় বিমানটি।

এরপর আজ দুপুরে বিমানবন্দর সচল হাবার পর প্রেম নাথ জানান, শুক্রবার দুপুরে কোনও ক্ষয়ক্ষতি ছাড়াই বিমানটি সরিয়ে নেওয়ার পর আবারও সচল হয়েছে ত্রিভুবন বিমানবন্দর। তবে বিমানের সম্যসাটি কি ছিল তা জানাতে পারেননি প্রেম নাথ।

গত ১২ মার্চ স্থানীয় সময় দুপুর ২টা ১৫ মিনিটে কাঠমান্ডুর এই বিমানবন্দরে ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের একটি বিমান বিধ্বস্ত হয়। এতে মোট ৭১ জন আরোহী ছিল। যার মধ্যে ৫১ জন নিহত হয় এবং ২০ জনকে জীবিত উদ্ধার হয়। নিহতদের মধ্যে ২৬ জন বাংলাদেশি। তার আগে ২০১৫ সালের মার্চে তুরস্কের একটি বিমান ছিটকে পড়ে চারদিন বন্ধ ছিল ত্রিভুবন বিমানবন্দর।






Related News

Comments are Closed